স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা : অবশেষে SSK-MSK শিক্ষকদের ধর্না মঞ্চে এলেন শিক্ষামন্ত্রী। তাঁর আশ্বাসেই মঙ্গলবার উঠল ধর্না। জানা গিয়েছে আন্দোলনকারীদের কাছে ১৫ দিনের সময় চেয়েছেন মন্ত্রী। তবে, তাঁদের ২ টি দাবি আপাতত মেনে নিয়েছেন তিনি বলেও জানা গিয়েছে। তাই তার কথার আশ্বাসেই ৭ দিনের মাথায় উঠে গেল শিক্ষকদের ধর্না।

জানা গিয়েছে, এদিন রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের সমস্যার সমাধান করে শিক্ষকদের ধর্না মঞ্চে যান শিক্ষামন্ত্রী। বোঝানোর চেষ্টা করেন SSK-MSK -MADRASA-AS এর শিক্ষকদের। সূত্রের খবর এদিন প্রায় দেড় ঘণ্টা বৈঠক চলে মন্ত্রীর সঙ্গে ধর্নার ধারকদের। তাদের কয়েকটি দাবি মেনে নেন মন্ত্রী। কিন্তু তাদের দাবি ছিল ধর্না মঞ্চে গিয়েই বিষয়টি ঘোষণা করুন মন্ত্রী। সেই মত এদিন সন্ধ্যে সাড়ে ছটা নাগাদ ধর্না মঞ্চে আসেন শিক্ষা মন্ত্রী। সেখান থেকেই তিনি জানান, শিক্ষকদের দাবি মত, তাদের স্বাস্থ্য সাথীর আওতায় আনা হল। স্বাস্থ্য বীমার আওতাতেও আনা হল । তবে বেতন বৃদ্ধি সংক্রান্ত কোন আশ্বাস এদিন দেন নি বলেই জানা গিয়েছে। তিনি আপাতত ১৫ দিন সময় চেয়েছেন । এই সময়ের মধ্যেই শিক্ষকদের বাকি দাবি গুলি আলচনা করবে সরকার।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত বুধবার(১২ জুন) থেকে সল্টলেকের করুণাময়ী বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন রাস্তার ধারে কাতারে কাতারে জমায়েত হন রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা শিক্ষকরা। পরে অবশ্য এদিন সন্ধ্যেতেই তারা বিধান মূর্তির পাদদেশে ধর্না মঞ্চ স্থানান্তর করেন। চলতি বছরেরই মার্চ মাসে এই একই দাবীতে ধর্নায় বসেছিলেন তাঁরা। সল্টলেকেরই বিধান মূর্তির পাদদেশে Y চ্যানেল সংলগ্ন চত্বরে নিজেদের দাবির সমর্থনে আন্দোলনে জমায়েত হয়েছিলেন তাঁরা।

পরে সরকারি হস্তক্ষেপে আন্দোলন তুলে নেন আন্দোলনকারীরা। কথা ছিল, ভোট শেষ হলে তাঁদের সমস্যার সমাধান করে দেবে সরকার। কিন্তু, ভোট মিটতেই দেখা গেল সব ফাঁকা। রাজ্য মাদ্রাসা MSK-SSK সংগঠনের সহ সভাপতি তাপস চক্রবর্তী জানিয়েছিলেন, “তাঁদের সংগঠনের অন্যতম ধারক মইদুল ইসলাম বাবু শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে এ ব্যপারে ফোন করেছিলেন চলতি মাসের ২-৩ তারিখ করে। শিক্ষামন্ত্রী তাঁকে জানিয়েছেন, “আমরা এখন কিছু করতে পারছি না। অর্থের অভাব। আরও সময় চাই।” যার কারণেই ফের ধর্নায় বসেছিলেন তারা।