কলকাতা: বুধবার পশ্চিমবঙ্গ স্কুল শিক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান সৌমিত্র সরকারকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। তাঁর কাজে শিক্ষা দফতএর সন্তুষ্ট ছিল না বলেই জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। তাঁর জায়গাতে আপাতত এক অস্থায়ী কর্মীকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

নতুন চেয়ারম্যান যোগ দেওয়া পর্যন্ত ওই কর্মী কাজ চালিয়ে যাবেন বলে জানা গিয়েছে। অধ্যাপক সৌমিত্রবাবু দুবছর এই পদে ছিলেন। তাঁর সময়কালে নবম- দশম, একাদশ দ্বাদশ সহ উচ্চ প্রাথমিকের পরীক্ষা নেওয়া হয়েছিল। তাতে উচ্চ প্রাথমিক ছাড়া বাকি সবেতে কর্মী নিয়োগ সম্পন্ন হয়েছে। তারপরেও একের পর এক সমস্যাতে সরকারকে পরতে হয়েছে। যে কারণে তাঁর উপরে ক্রমেই ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছিল রাজ্য সরকার।

যদিও সরকারকে না জানিয়ে নিয়োগ সংক্রান্ত জটিলতার মধ্যে ছুটিতে যাওয়ার কারণে তাকে শোকজ করেছিল সরকার। আত্র বিরুদ্ধে অভিযোগ জমা পড়েছিল। যে কারণে তাকে সরিয়ে দেওয়া হল বলে মনে করা হছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।