স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: নবম-দশম শ্রেণীর শিক্ষক নিয়োগ সংক্রান্ত মেধা তালিকা প্রকাশ করেনি এসএসসি৷ এই অভিযোগে আদালত অবমাননার মামলা দায়ের করেছিলেন মণিকা রায় নামের এক চাকরিপ্রার্থী৷ আদালত এসএসসির কর্তাদের হাজিরা দেওয়ার নোটিস পাঠানোর পরও তারা উপস্থিত হননি৷ আদালতের নোটিস গ্রাহ্য না করায়, শুক্রবার এসএসসির চেয়ারম্যান এবং সচিবকে সশরীরে আদালতে হাজিরা দেওয়ার নির্দেশ দিল কলকাতা হাইকোর্ট৷

এবিষয়ে রুল জারি করেন বিচারপতি রাজশেখর মান্থারের সিঙ্গল বেঞ্চ৷ আগামী ২৮ জানুয়ারি এসএসসির চেয়ারম্যান এবং সচিবকে সশরীরে কোর্টে হাজির হয়ে ব্যাখা দিতে হবে কেন তাঁরা কোর্টের নোটিস পাওয়ার পরও আদালতে উপস্থিত হলেন না। এদিন অবশ্য এসএসসির পক্ষের কোনও আইনজীবী মামলায় উপস্থিত ছিলেন না।

মামলাকারীর পক্ষের আইনজীবী আশিসকুমার চৌধুরী আদালতে জানান, নিয়ম অনুয়াযী এসএসসি নবম দশম শ্রেণির শিক্ষক নিয়োগের মেধা তালিকা প্রকাশ করেনি। এমনকী হাইকোর্টের নির্দেশ থাকার সত্ত্বেও আদালতে উপস্থিত হননি চেয়ারম্যান, সচিব। যা আদালতের নির্দেশের অবমাননার সামিল৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।