স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা : যিশু সেনগুপ্তের মুখোশ টেনে খুলে ফেললেন পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায়৷ ফাঁস করলেন সেই ছবি৷ না কোনও টেলি-ধারাবাহিকের মতো ড্রামাটিক সিক্যোয়েন্স নয়৷ মুখোশ টেনে খুলেছেন ঠিকই তবে কথাটার লিটারেল মিনিংও রয়েছে৷

‘এক যে ছিল রাজা’র জন্য যিশুর লুকে বিপুল বদল ঘটেছিল৷ চেহারায় এবং মুখে আসা সেই বদলের নেপথ্যে মেক আপ আর্টিস্ট সোমনাথ কুন্ডু৷ তাঁর তৈরি করা প্রসথেটিকের ফেস কাস্ট অর্থাৎ যিশুর মুখের প্রসথেটিক আদলটি যত্নে রেখে দিয়েছেন পরিচালক৷

সেই ছবি শেয়ার করেছেন ট্যুইটারে৷ আর যত্নে রাখবেন নাই বা কেন৷ তাঁর জীবনের অন্যতম সেরা ছবি ‘এক যে ছিল রাজা’৷ পুজোর একাধিক ছবি রিলিজের মাঝে আকাশের উজ্জ্বল নক্ষত্রের মতো সকলের নজর কেড়েছে সৃজিতের এই ছবি৷ যিশুর ভোলবদল, ভিন্ন স্ক্রিপ্ট, ‘সন্ন্যাসী রাজা’ ছবির অন্য একটা দিক তুলে ধরা৷ মোটের ওপর খুব একটা সহজ কাজ ছিল না৷  

তবে এত খাটনি বিফলে যায়নি৷ দর্শকের মন জুড়ে রাজ করেছেন সৃজিতের রাজা৷ অন্যদিকে যিশুর সম্বন্ধে যত বলা যায় ততই কম৷ যে হিরো কখনও নিজের টোনড অ্যাবস নিয়ে ভাবনা চিন্তা করেননি৷ শার্টলেস হয়ে নায়িকার সামনে সেই অর্থে দাঁড়াননি, তাঁকে নাকি সন্ন্যাসীর বেশে শ্যুট করতে হবে ছবির অধিকাংশ অংশজুড়ে৷

সেটের একশোটা মানুষের মধ্যে সেই বেশেই শট দিলেন যিশু৷ আর এই চরিত্রের মধ্যে দিয়েই ফের একটা বড়ো ট্রান্সফরমেশনও এসেছে বলা যায়, যেরকম রাজকাহিনি ছবিতে অন্য ধরণের চরিত্রে যিশুকে দেখে চমকে উঠেছিলেন সকলে৷ সেই ধারা অব্যাহত রাখল এক যে ছিল রাজা৷

‘এক যে ছিল রাজা’ যেভাবে ক্রিটিকালি অ্যাক্লেমড হয়েছে সেভাবেই বক্স অফিসেও জমিয়ে বিজনেস করছে৷ আজও সৃজিতকে অসংখ্য দর্শক ছবিটি দেখার পর ট্যুইট করে লিখেছে ছবিটি তাদের কাছে ২০১৮ এর সেরা ছবি হয়ে রইল৷ দর্শকের কথায়, পুজোয় পাওয়া সৃজিতের এই উপহার তাদের কাছে শ্রেষ্ঠ৷