কলকাতা: গত কয়েকদিন ধরেই খবরটা ঘুরছিল বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে। বাংলা ছবির এই মুহূর্তে ব্যস্ততম পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের বিয়ে। তিনি বিয়ে করতে চলেছেন বাংলাদেশের অভিনেত্রী মিথিলাকে। ঠিক কবে বিয়ে হবে তা নিয়ে ছিল জল্পনা। অবশেষে সেই জল্পনার অবসান। সূত্রের খবর, শুক্রবার সন্ধেতেই বিয়ের পিঁড়িতে বসছেন সৃজিত-মিথিলা।

যা শোনা যাচ্ছে, এদিনই তাঁদের রেজিস্ট্রি হবে। রেজিস্ট্রি হবে দক্ষিণ কলকাতার এক ফ্ল্যাটে। এ ব্যাপারে বর-কনে দু’জনেই মুখে কুলুপ আঁটলেও যা জানা যাচ্ছে, রেজিস্ট্রির পর খুব ঘনিষ্ঠ বন্ধুবান্ধব নিয়ে একটা ছোট পার্টি অ্যারেঞ্জ করেছেন নবদম্পতি। এর মধ্যেই শোনা গিয়েচিল, তিনি নাকি বাংলাদেশে গিয়ে বিয়ের কেনাকাটাও করেছেন।

২০২০-র ২২ ফেব্রুয়ারি বিয়ের দিন ঠিক হয়েছিল বলে জানা যাচ্ছিল। যদিও দু’জনের কেউই এই বিষয়ে মুখ খোলেননি সংবাদমাধ্যমে, চুপচাপই ছিলেন দু’জনে।

তাদের প্রেম ও বিয়ের গুঞ্জন নতুন কিছু নয়। বহুদিন ধরেই সৃজিতের সঙ্গে মিথিলার প্রেমের কথা শোনা যাচ্ছিলো। বরাবরই তারা ‘জাস্ট ফ্রেন্ড’ বলে এটি অস্বীকার করেছেন। কিন্তু কলকাতা বা বাংলাদেশ সাম্প্রতিক সময়ে তাদের একসঙ্গে বহুবার পাওয়া গিয়েছে। এমনকি পারিবারিক অনুষ্ঠানেও তারা নিয়মিত উপস্থিত থেকেছেন।

গত সেপ্টেম্বর মাসে একটি ঘরোয়া পার্টিতে তাঁদের একসঙ্গে প্রথম দেখা যায়। এরপর ২৩ সেপ্টেম্বর পরিচালকের জন্মদিনের বিশেষ ছবিতেও দেখা যায় মিথিলাকে। সর্বশেষ তাদের দুজনকে ঢাকার আর্মি স্টেডিয়ামে সদ্য সমাপ্ত ফোকফেস্ট দেখা গিয়েছে।

গত মাসে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া জানিয়েছিল, সৃজিত-মিথিলার প্রেমের সম্পর্কটা দারুণ চলছে। ঈদের ছুটিতে বাংলাদেশ থেকে সৃজিতের সঙ্গে দেখা করতে এসেছিলেন মিথিলা।

এ বিষয়ে মিথিলার বলেন, ‘অনেক আগে থেকে সৃজিতের সঙ্গে আমার পরিচয়। এর আগেও আমাদের দেখা হয়েছে, কথা হয়েছে। আমাদের দুজনের কয়েকজন কমন বন্ধু আছে। ইদানিং কাজের সুবাদে যোগাযোগটা বেশি হয়।’

কিছুদিন আগেই বাংলাদেশের সংবাদমাধ্যমে জানা যায়, আনুষ্ঠানিকভাবে মিথিলাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতেই বর্তমানে বাংলাদেশে গিয়েছিলেন সৃজিত। এই প্রসঙ্গে সৃজিতের বক্তব্য ছিল, ‘আমি ওর পরিবারকে দীর্ঘদিন ধরে চিনি। ওর পরিবারের সঙ্গে আলাদাভাবে দেখা করার জন্য আমার যাওয়ার কোনও প্রয়োজন নেই।’ যদিও ইদানিং মাঝে মধ্যেই বাংলাদেশ যাচ্ছিলেন গুমনামি বাবা-র পরিচালক সৃজিত।