কলকাতা- ডিসেম্বর মাসের ৬ তারিখ গাঁটছড়া বেঁধেছিলেন পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায় ও বাংলাদেশের অভিনেত্রী রাফিয়াদ রশিদ মিথিলা। সেই আইনি বিয়ের দিন উপস্থিত ছিলেন হাতে গোনা কয়েকজন বন্ধু ও পরিজন। কিন্তু সৃজিতের বিয়েতে ইন্ডাস্ট্রির তারকাদের ভিড় হবে না তা কী ভাবে হয়! আর তাই অপেক্ষার অবসান। অবশেষে একটি গ্র্যান্ড রিসেপশনের আয়োজন করেছেন সৃজিত মিথিলা।

আগামী ২৯ ফেব্রুয়ারি আয়োজন হয়েছে এই গ্র্যান্ড রিসেপশনের। আর সৃজিতের ছবির মতোই নিমন্ত্রণ পত্রেও রয়েছে চমক। নিমন্ত্রণ হয়েছে মুখার্জি কমিশনের তরফ থেকে! অবাক হচ্ছেন তো! তবে এই মুখার্জি কমিশনের সঙ্গে নেতাজির কোনও যোগ নেই। সৃজিতের পদবী মুখার্জি। তাই নিজের রসবোধ কাজে লাগিয়েই নিমন্ত্রণপত্রে এই চমক রেখেছেন সৃজিত। আর পুরো নিমন্ত্রণ জুড়ে রয়েছে নিজের ছবির নাম ও গানের বিভিন্ন লাইন।

কিন্তু কোথায় হবে এই রিসেপশন যেখানে বাংলা ছবির জগতের চাঁদের হাট বসবে! স্বভূমির রাজকুটিরে হবে সৃজিত ও মিথিলার রিসেপশন।

গত ৬ ডিসেম্বর চারহাত এক করেছেন সৃজিত ও মিথিলা। পরিবার ও ঘনিষ্ঠ বন্ধুরাই শুধু বিয়েতে উপস্থিত ছিলেন। বিয়ে ও হানিমুন সেরেই আবার ভৌগোলিক ভাবে অনেকটাই দূরে সৃজিত-মিথিলা।

প্রসঙ্গত, ফেসবুকের মাধ্যমেই দুজনের আলাপ হয়েছিল। সৃজিতের তরফ থেকেই প্রথমে গিয়েছিল বন্ধুত্বের অনুরোধ। তার পরে মেসেঞ্জারে আলাপ। কয়েকদিন কথাবার্তা চলার পরেই ২০১৯-এর জানুয়ারিতে ঢাকায় মিথিলার সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন সৃজিৎ। তখনই বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছিলেন তিনি।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও