অরুণাভ রাহারায়, কলকাতা: আবারও বিতর্কের কেন্দ্রবিন্দু কবি শ্রীজাত। ‘অভিশাপ’ কবিতাটি লেখার পর থেকে যেন বিতর্ক তাঁর পিছু ছাড়ছে না। মঙ্গলবার রাতে কবি শ্রীজাত নিজের ফেসবুকে একটি পোর্টালের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে লেখেন তাঁর একটি ভুয়ো সাক্ষাৎকার সেখানে প্রকাশিত হয়েছে। যার শিরোনাম: ‘তৃণমূল লিখতে গিয়ে ত্রিশূল লিখে ফেলেছিলাম, বিস্ফোরক শ্রীজাত’। কিন্তু সাক্ষাৎকারটির সঙ্গে কোনও ভাবেই তিনি জড়িত নন এমন কথাও জানিয়ে দেন তিনি।

শ্রীজাত কিছুদিন আগেই গিয়েছেন আমেরিকায়। এই মুহূর্তে তিনি রয়েছেন প্যারিসে। ওই পোর্টালের প্রতি ঘৃণা উগরে দিয়ে তিনি লেখেন– “একটি ভুয়ো সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হয়েছে। এরা আমার সঙ্গে যোগাযোগ করেনি এবং আমিও কোনও কথা বলিনি এদের। শাস্তি হওয়া উচিত এই ধরনের মিথ্যাচারের। আপাতত দেশের বাইরে আছি, তাই ছেড়ে দিলাম।” এর পরেই কার্যত ক্ষোভে ফেটে পড়েন শ্রীজাত-ভক্তরা।

পড়ুন: তিনঘন্টার বেশি থাকা যাবে না তাজমহলে

কবি শ্রীজাতর অভিশাপ কবিতাটি সকলেরই জানা। কবিতাটি শেষ লাইনে কবি লিখেছিলেন “কন্ডোম পরানো থাকবে, তোমার ওই ধর্মের ত্রিশূলে!” লাইনটির জন্য মৌলবাদীদের রোষের মুখে পড়তে হয় শ্রীজাতকে। ২০১৭ সালের ২১ মার্চ এই লাইনটি ভাবাবেগে আঘাত এনেছে বলে শিলিগুলিড়ি শ্রীজাতর বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করেন জনৈক যুবক। এই পরেই শুরু হয় তোলপাড়। কারও কারও মতে কবিতায় স্বাধীন ভাবে মত প্রকাশই কবির স্বধীনতা, আবার কারও মতে এই লাইন কিছু মানুষের ধর্মাবেগে আঘাত।

এখানেই শেষ নয় ২০১৮ সালে শিলিগুড়িতে অনুষ্ঠিত ‘দার্জিলিং লিটারারি মিট’-এ জনা কয়েক গেরুয়াধারী শ্রীজাতের বিরুদ্ধে গো ব্যাক স্লোগান তোলেন। সেখানে উপস্থিত কবি শ্রীজাতকে পুলিশি নিরাপত্তা দেওয়া হয়। চলতি বছর জানুয়ারিতে একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি হয় শিলচরে। সেখানে একটি কবিতার অনুষ্ঠানে শ্রীজাতর উপর আঘাত করেন মৌলবাদীরা। ঘটনার জেরে পুলিশের কাছে অভিযোগ করে অনুষ্ঠান কর্তৃপক্ষ। পরে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হস্তক্ষেপে বিশেষ বিমানে, বিশেষ নিরাপত্তায় শ্রীজাতকে ফিরিয়ে আনা হয় কলকাতায়।

এরপর ব্রিগেডে তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বভারতীয় মঞ্চে কবিতা পড়তে দেখা যায় তাঁকে। লোকসভা নির্বাচনে শ্রীজাতকে তৃণমূলের প্রার্থী করার বিষয়েও গুঞ্জন শোনা গিয়েছিল। কিন্তু তা সত্যি হয়নি। যদিও এখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে তাঁর সুসম্পর্কের কথা সকলেরই জানা। সে কারণেই কি তৃণমূলের নাম জড়িয়ে শ্রীজাতর এমন ভুয়ো সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হল? প্রশ্ন কিন্তু থেকেই যাচ্ছে। নীচে শ্রীজাতর অভিশাপ কবিতাটি তুলে দেওয়া হল–

অভিশাপ

সময়ে ওষুধ, নইলে বেড়ে যায় সবরকম রোগই
ভিখ পেতে পেতে তুমি রাজা হয়ে ওঠো, গেঁয়ো যোগী।

উঠেই নির্দেশ দাও, ধর্মের তলব দিকে দিকে
মৃগয়ায় খুঁজে ফেরো অন্য কোনও ধর্মের নারীকে।

যে–হরিণ মৃত, তারও মাংসে তুমি চাও অধিকার
এমন রাজত্বে মৃত্যু সহজে তো হবে না তোমার।

বাতাসে হাপর নামে, দেশ জুড়ে অধর্মের ছাই…
প্রতি নির্বাচনে আমরা শতাব্দীপিছনে ফিরে যাই।

যেখানে পুরুষধর্ম ধর্ম-পুরুষের অন্য নাম
আর আমি নারীর মৃত্যু পার করেও শিকার হলাম।

আমাকে ধর্ষণ করবে যদ্দিন কবর থেকে তুলে –
কন্ডোম পরানো থাকবে, তোমার ওই ধর্মের ত্রিশূলে!