নয়াদিল্লি: শ্রীলঙ্কার প্রথম সারির ১০ জন ক্রিকেটারের আসন্ন পাকিস্তান সফর বাতিলের জের। কারণ হিসেবে ভারতের ক্রিকেট ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগ আইপিএল’কেই দুষলেন প্রাক্তন পাক তারকা ক্রিকেটার শাহিদ আফ্রিদি। আফ্রিদি সাফ জানিয়েছেন, শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটারদের সঙ্গে এবিষয়ে তাঁর কথা হয়েছে, ক্রিকেটাররা জানিয়েছেন পাকিস্তান সফর কিংবা পাকিস্তান সুপার লিগে তাদের খেলার ইচ্ছে থাকলেও আইপিএল ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর চাপ এক্ষেত্রে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

টি-২০ দলনায়ক লাসিথ মালিঙ্গা, ওয়ান-ডে ও টেস্ট দলনায়ক দিমুথ করুণারত্নে সহ দ্বীপ রাষ্ট্রের প্রথম সারির ১০ জন ক্রিকেটার নিরাপত্তার কারণে নিজেদের সরিয়ে নিয়েছেন আসন্ন পাকিস্তান সফর থেকে। যার মধ্যে রয়েছেন প্রাক্তন অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউজ, থিসারা পেরেরা, দীনেশ চাঁদিমলরাও। এপ্রসঙ্গে আফ্রিদি সেদেশের এক সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ‘আইপিএল থেকে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটারদের উপর ক্রমাগত চাপ আসছে। শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটারদের সঙ্গে পাকিস্তানে খেলতে আসার বিষয়ে আমার কথা হয়েছে। তাদের এখানে (পাকিস্তান) খেলতে আসার প্রবল ইচ্ছা ছিল কিন্তু আইপিএল ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো জানিয়েছে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটাররা যদি পাকিস্তানে খেলতে যায় তবে তাদের সঙ্গে চুক্তি বাতিল করা হবে।’

কিন্তু আফ্রিদির এমন অভিযোগের কোনও যৌক্তিকতা খুঁজে পাচ্ছেন না অনুরাগীরা। কারণ, লাসিথ মালিঙ্গা ছাড়া বাকি ৯ জন ক্রিকেটারদের কেউই আইপিএল ফ্র্যাঞ্চাইজির সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ নন। শ্রীলঙ্কার টি-২০ অধিনায়ক মালিঙ্গা একমাত্র আইপিএলে মুম্বই ফ্র্যাঞ্চাইজির সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন। আকিলা ধনঞ্জয়াও ২০১৮ মুম্বই ফ্র্যাঞ্চাইজির সঙ্গে যুক্ত থাকলেও ২০১৯ তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

তবে এক্ষেত্রে আফ্রিদির আরও সংযোজন করে বলেছেন, ‘পাকিস্তান সবসময় শ্রীলঙ্কাকে সবরকম সহযোগীতা করে এসেছে। দলের গুরুত্বপূর্ণ ক্রিকেটারদের বিশ্রাম দিয়ে পাকিস্তান কখনও শ্রীলঙ্কা সফরে যায়নি। শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ডের উচিৎ ছিল ক্রিকেটারদের আরেকটু চাপ দেওয়া। যে সকল ক্রিকেটাররা পাকিস্তনা সফরে আসছে তারা পাকিস্তানের ইতিহাসে স্মরণীয় হয়ে থাকবে।’ পাকিস্তানের মাটিতে আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে ৯ অক্টোবর পর্যন্ত ৩টি ওয়ান-ডে ও ৩টি টি-২০ ম্যাচ খেলবে শ্রীলঙ্কা।

আফ্রিদির এমন অভিযোগের কিছু সময় পরেই শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ডের তরফ থেকে জানানো হয়, ‘রাষ্ট্রপ্রধানদের যে পর্যায়ের নিরাপত্তা প্রদান করা হয়, পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটারদের সেই সর্বোচ্চ পর্যায়ের নিরাপত্তার প্রতিশ্রুতি দেওয়ায় পর পাক সফরে সম্মতি দিয়েছি আমরা।’

উল্লেখ্য, ২০০৯ মার্চে লাহোরে শ্রীলঙ্কার টিম বাসে সন্ত্রাসবাদী হামলার ঘটনা এখনও ভুলতে পারেননি সিংহলি ক্রিকেটাররা। অতীতের ভয়াবহ সেই স্মৃতি এখনও টাটকা বলেই মালিঙ্গারা বোঝেন পাক ভূ-খণ্ডে ক্রিকেট খেলতে গেলে জীবন বাজি রাখতে হবে তাঁদের। সেই ঘটনার পর থেকে এক দশক কেটে গেলেও সেই অর্থে পাকিস্তানের মাটিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কার্যত ব্রাত্য।

জিম্বাবোয়ে, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও একবার শ্রীলঙ্কার ক্লাব স্তরের দলকে নিয়ে পাকিস্তান নিজেদের মাঠে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট আয়োজন করেছিল। তবে ঘরের মাঠে প্রথম সারির কোনও দলকে নিয়ে পূর্ণাঙ্গ দ্বি-পাক্ষিক সিরিজ এখনও আয়োজন করতে পারেনি পিসিবি।