ক্রাইস্টচার্চ: নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় টেস্টে আগুনে বোলিং লাকমলের৷ লাহিরু কুমারাকে সঙ্গে নিয়ে লাকমল ভাঙলেন কিউয়ি ইনিংস৷ তা সত্ত্বেও দিনের শেষে শ্রীলঙ্কাকে চালকের আসনে বলা যাবে না টিম সাউদির পাল্টা আক্রমণের জন্য৷ সব মিলিয়ে ক্রাইস্টচার্চ টেস্টের প্রথম দিনে পেসারদের একতরফা দাপট চোখে পড়ল৷

সবুজ প্রাণবন্ত পিচ৷ টসে জিতে যে কোনও অধিনায়কই প্রথমে ফিল্ডিং করতে চাইবে৷ ব্যতিক্রমী নন দীনেশ চাঁদিমলও৷ টস ভাগ্য সঙ্গ দিতেই তিনি নতুন বল তুলে দেন লাকমলদের হাতে৷ দলনায়ককে হতাশ করেনি শ্রীলঙ্কার পেস জুটি৷ পাল্লা দিয়ে উইকেট তুলে নিউজিল্যান্ডকে প্রথম ইনিংসে ১৭৮ রানে অলআউট করে দিতে মুখ্য ভূমিকা নেন লাকমল-কুমারা জুটিই৷

আরও পড়ুন: আইসিসি’র হল অফ ফেমে পন্টিং

জবাবে ব্যাট করতে নেমে শ্রীলঙ্কা অবশ্য পায়ের তলার জমি শক্ত করতে পারেনি৷ মাত্র ৫১ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে বসা চাঁদিমলরা প্রথম দিনের শেষে আর কোনও উইকেট খোয়ালেও ৮৮ রানের বেশি তুলতে পারেনি৷

নিউজিল্যান্ড একসময় ৬৪ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে বসেছিল৷ সেখান থেকে ওয়াটলিং-সাউদির জুটি সপ্তম উইকেটে ১০৮ রান যোগ করে কিউয়িদের দেড়শোর গণ্ডি পার করায়৷ ওয়াটলিং ৯০ বলে ৪৬ রান করে আউট হন৷ সাউদি সাজঘরে ফেরেন ৬৫ বলে ৬৮ রান করে৷ বাকিদের মধ্যে রস টেলর (২৭) ছাড়া বলার মতো রান করতে পারেননি কেউই৷

আরও পড়ুন: হিলস-ফ্ল্যাটস পড়ল না কিছুই, বিগ ব্যাশে টস বিপত্তি

লাকমল একাই ৫৪ রানের বিনিময়ে ৫ উইকেট দখল করেন৷ কুমারা নেন ৪৯ রানে ৩ উইকেট৷ ১৩ রানে একটি উইকেট নিয়েছেন দিলরুয়ান পেরেরা৷ ম্যাথিউজ ও চামিরা কোনও উইকেট পাননি৷

শ্রীলঙ্কার প্রথম তিনজন ব্যাটসম্যান গুনতিলকে, করুণারত্নে ও চাঁদিমল যথাক্রমে ৮, ৭ ও ৬ রান করে ক্রিজ ছাড়েন৷ তিনজনকেই ফিরিয়ে দেন সাউদি৷ মেন্ডিসকে ১৫ রানে আউট করেন গ্র্যান্ডহোম৷ দিনের শেষে ম্যাথিউজ ২৭ ও সিলভা ১৫ রানে অপরাজিত থাকেন৷