কলম্বো: সেরাম ইন্সটিটিউটের থেকে প্রায় ২ অথবা ৩ মিলিয়নের কাছাকাছি ভ্যাকসিন নিতে চলেছে শ্রীলঙ্কা। সে দেশের এক শীর্ষ আধিকারিক বুধবার একথা জানিয়েছেন।

রাষ্ট্রপতি গোটাবায়া রাজাপাকসের উপদেষ্টা ওয়েরাতুঙ্গা জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার শ্রীলঙ্কায় ভারতের বিনামূল্যের ভ্যাকসিনের প্রবেশের পরেই এই ৩ মিলিয়ন ভ্যাকসিন পৌঁছবে শ্রীলঙ্কাতে।

আরও পড়ুন – মান হুঁশ তৈরির খরচ ২টাকা, ‘সদাই ফকিরের পাঠশালা’র কারিগর পাচ্ছেন পদ্মশ্রী

তিনি জানিয়েছেন, ভারতের কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন আগামীকালই পৌঁছে যাচ্ছে। কলম্বো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এই চালানটি গ্রহণ করতে হাজির থাকাবেন খোদ রাষ্ট্রপতি।

অগ্রাধিকার ভিত্তিতে আড়াই লক্ষ মানুষ যারা কিনা স্বাস্থ্য কর্মী, নিরাপত্তা রক্ষী এবং পুলিশ কর্মী ও বৃদ্ধ মানুষেরা এই টিকা পাবেন বলে জানা গিয়েছে। শুক্রবার থেকে সে দেশে সম্ভবত ড্রাই রান শুরু হবে। ওয়েরাতুঙ্গা জানিয়েছেন, চিনের কাছ থেকে ৩ লক্ষ ভ্যাকসিন বিনামূল্যে দেওয়ার কথা রয়েছে এবং সরকার এই ভ্যাকসিনের জন্য রাশিয়াকেও অনুরোধ করবে।

আরও পড়ুন – কারাবাসের মেয়াদ শেষ, জেল থেকে ছাড়া পেলেন জয়ললিতার ছায়াসঙ্গী শশীকলা

উল্লেখ্য শুধু শ্রীলঙ্কা না, দক্ষিণ আফ্রিকা, সৌদি আরবেও ভ্যাকসিনের বাণিজ্যিক সরবরাহ করা হবে বলে আশা করা হচ্ছে। ১২ মিলিয়ন ডোজ ভ্যাকসিন চেয়েছে নেপালও। ১৫ লক্ষ কোভ্যাকসিনের বরাত দিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা। ৫০ লক্ষ কোভ্যাকসিনের বরাত দিয়েছে ব্রাজিল।

এছাড়া থাইল্যান্ড, সিসিলি, আফগানিস্তান, মরিশাস সহ আরও অনেক দেশ ভারতের কাছ থেকে এই ভ্যাকসিন বাণিজ্যিক ভাবে কিনতে চেয়েছে। অস্ট্রেলিয়া, ফিলিপিন্স, ইন্দোনেশিয়া, সিঙ্গাপুর, জাপানও এই ভ্যাকসিন কেনার ব্যাপারে ভারতের কাছে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। উল্লেখ্য ১৬ জানুয়ারি ভারতে শুরু হয়েছে টিকাকরণ। দেশব্যাপী টিকা কর্মসূচী শুরু করার সাত দিন পরেই বাণিজ্যিক ভাবে টিকা সরবরাহের রাস্তায় হাঁটে কেন্দ্র।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।