নয়াদিল্লি ও কলম্বো: সকাল থেকেই আতংকের প্রহর কাটছে৷ এই বুঝি এরেকটা বিস্ফোরণ হয়৷ শ্রীলঙ্কায় থাকা ভারতীয়রা কোনও রকমে এখন দেশে ফিরতে চাইছেন৷ শুধু সেখানে বসবাসকারী ভারতীয়রাই নন, পর্যটকরাও উদ্বিগ্ন তাঁদের দেশে ফেরা নিয়ে৷

কলম্বো থেকে সন্ধেবেলার ফ্লাইট ছিল দেশে ফেরার৷ সে পরিকল্পনা এখন বিশ বাঁও জলে পর্যটকদের৷ এখন একটাই চিন্তা প্রাণ বাঁচিয়ে দেশে কবে ফিরবেন তাঁরা৷ ভারতীয় হাই কমিশন তাঁদের পাশে রয়েছে বলে আশ্বাস দিলেও আতংক কাটছে না তাঁদের৷ পরিবারের সবাইকে নিয়ে কীভাবে নিরাপদে বাড়ি ফিরবেন, সেই দুশ্চিন্তায় ঘুম উড়েছে ভারতীয় পর্যটকদের৷

গোটা ঘটনার কড়া নিন্দা করে প্রেস বিবৃতি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী৷ ভারত এই বিপদে শ্রীলঙ্কার পাশে রয়েছে বলে আশ্বাস দিয়েছেন তিনি৷ ভারতীয় বিদেশমন্ত্রকের পক্ষ থেকে ভারতীয় পর্যটকদের সাহায্যের প্রতিশ্রুতিও দেওয়া হয়েছে৷ তবু চিন্তা কাটছে না সেখানে উপস্থিত ভ্রমণার্থীদের৷

কলম্বো থেকে ১০ কিমি দূরে নেগোম্বোতে আটকে পড়েছেন অনেকে৷ শনিবার রাত থেকেই একদল পর্যটক সেখানে ছিলেন৷ আর রবিবার ভোরের আলো ফুটতে না ফুটতেই বিস্ফোরণের তীব্র অভিঘাতে কেঁপে ওঠে কলম্বো৷ নেগোম্বো ছাড়াও ভারতীয় পর্যটকদের দল রয়েছে মিরিসাতে৷ তাঁদের এখন একটাই চিন্তা কলম্বো থেকে ফেরার বিমান কী ভাবে পাবেন তাঁরা৷ নিরাপদে ঘরে পৌঁছতে পারবেন তো?

পর পর ছটি বিস্ফোরণে কার্যত বিধ্বস্ত শ্রীলঙ্কা৷ রবিবার রাজধানী কলম্বো রক্তাক্ত হয়ে ওঠে একের পর এক বিস্ফোরণে৷ কলম্বোর তিনটি চার্চ এবং দুটি বিলাসবহুল হোটেলে এই বিস্ফোরণে ক্রমশ বাড়ছে মৃতের সংখ্যা৷ ইতিমধ্যেই ভারতের বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ ট্যুইট করে জানিয়েছেন, শ্রীলঙ্কার এই ঘটনার ওপর নজর রাখছে ভারত৷

আরও পড়ুন : শ্রীলঙ্কা বিস্ফোরণে মারা গিয়েছেন ১৩৮ ‘মিলিয়ন’ মানুষ, ট্যুইট ট্রাম্পের

রবিবার সকাল ৮.৪৫মিনিট নাগাদ ৩টি গীর্জা এবং ৩টি বিলাসবহুল হোটেলে পর পর বিস্ফোরণে এভাবেই শুরু হল শ্রীলঙ্কার রবিবাসরীয় দিনটি৷ পরে বেলা গড়াতে আরও দুটি বিস্ফোরণের খবর আসে৷ এই ভয়াবহ নাশকতার পিছনে কারা রয়েছে তাও যেমন স্পষ্ট নয়, কারা টার্গেট ছিল সেটাও স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে না৷ তবে এমন ঘটনা যে ঘটতে পারে সে আশঙ্কার কথা নাকি আগেই জানিয়েছিলেন শ্রীলঙ্কার পুলিশ প্রধান৷

টাইমস অব ইন্ডিয়া সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবর থেকে জানা যাচ্ছে, পুলিশ প্রধান পুজুথ জয়সুন্দর শীর্ষ কর্তাদের আত্মঘাতী হামলার আশঙ্কার কথা জানিয়েছিলেন৷ তাও আবার ১০ দিন আগে৷ রবিবারের বিস্ফোরণের বিষয়ে সতর্কতাও জারি করেছিলেন দেশে৷

বিদেশি গোয়েন্দা সংস্থা জানায়, National Thowheeth Jama’ath বা NTJ দেশের প্রধান গীর্জাগুলিকে টার্গেট করে আত্মঘাতী হামলা করতে পারে৷ টার্গেট করা হতে পারে কলম্বোর ইন্ডিয়ান হাই কমিশনও৷