কলম্বো ও নয়াদিল্লি: ধারাবাহিক বোমা বিস্ফোরণে দ্বীপরাষ্ট্রকে রক্তাক্ত করে দেওয়া জঙ্গি সংগঠনের সদস্যরা সমুদ্র পথে ভারতের দিকে পালাতে পারে৷ এমনই আশঙ্কায় দুই রাষ্ট্র্রের জলসীমান্ত বরাবর নৌ বাহিনীকে অতি সতর্ক থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে৷ সতর্ক রয়েছে উপকূল রক্ষীবাহিনীও৷ উত্তর শ্রীলঙ্কা থেকে ভারতের তামিলনাড়ু পর্যন্ত দূরত্ব খুবই কম৷

জলপথে পক প্রণালী পার করে যাতে জঙ্গিরা কোনওভাবেই ভারতে ঢুকতে না পারে তার জন্য সতর্কতা জারি হয়েছে তামিলনাড়ুর উপকূলেও৷ গোয়েন্দা বিভাগের আশঙ্কা ব্যাপক ধরপাকড় শুরু হওয়ায় ‘সেফ প্যাসেজ’ হিসেবে মৎসজীবীদের ছদ্মবেশ নিয়ে পক প্রণালী ব্যবহার করতে পারে জঙ্গিরা৷ তামিলনাড়ু শ্রীলঙ্কার মধ্যবর্তী এই প্রণালী বঙ্গোপসাগর ও মান্নার উপসাগরকে যুক্ত করেছে। ডুবো পাহাড় থাকায় বড় জাহাজ চলাচলে অসুবিধা হলেও ছোট নৌকায় এখানে যাতায়াত হয়৷ সেই পদ্ধতিতেই জঙ্গি অনুপ্রবেশ নিয়ে চিন্তিত নয়াদিল্লি৷

পড়ুন: শ্রীলংকায় ধারাবাহিক বিস্ফোরণে সন্ত্রস্ত নাগাভূমিতে রেড অ্যালার্ট

গত রবিবারে পরপর ৮টি বিস্ফোরণে রক্তাক্ত হয় শ্রীলঙ্কা৷ তিনশোর বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে এই ঘটনায়৷ জখম হয়েছেন পাঁচ শতাধিক। নাশকতার পর থেকেই জরুরি অবস্থা জারি হয়েছে দেশটিতে৷ ধারাবাহিক বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় শ্রীলঙ্কা সরকারের নজরে এখন দেশটির চরমপন্থী সংগঠন ন্যাশনাল তাওহিদ জামাত (এনটিজে)৷ এই সংগঠনটি ইসলামিক স্টেটের অনুপ্রেরণা নিয়ে চলে৷ আবার নাশকতার দায় নিয়েছে আইএস৷

এদিকে কলম্বোর সংবাদ মাধ্যম, এএফপি, এপি সহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদসংস্থার রিপোর্ট, শ্রীলঙ্কার ঘটনার পর জঙ্গিরা ভারতেও হামলা চালাতে পারে বলে আশঙ্কা রয়েছে। সংবাদ সংস্থা সংস্থা এএনআই জানিয়েছে, সমুদ্রে টহলদারির কাজে দুই রাষ্ট্রের নৌ বাহিনীর একাধিক উড়োজাহাজ ব্যবহার করা হচ্ছে৷