নয়াদিল্লি: বালাকোট এয়ারস্ট্রাইকের আতংক এখনও কাটিয়ে উঠতে পারেনি পাকিস্তান৷ সাম্প্রতিক মিডিয়া রিপোর্ট বলছে, বালাকোট এয়ারস্ট্রাইকের মত আরও হামলা চালানোর আশংকা করছে তারা৷ ইসলামাবাদ মনে করছে ভারত আরও হামলা চালাতে পারে৷

এই আশংকায় পঞ্জাব প্রদেশের শাকাড়গড় সেক্টর সীমান্ত জুড়ে ৩০০টি ট্যাংক মোতায়েন করেছে পাকিস্তান৷ পাকিস্তান সেনার তিনটি বিভাগের তরফ থেকেই ট্যাংক মোতায়েন করা হয়েছে৷

২৬ ফেব্রুয়ারি পাক অধিকৃত কাশ্মীরে ঢুকে জইশ ই মহম্মদের ক্যাম্পের এয়ারস্ট্রাইক করে ভারতীয় বায়ুসেনা৷ এয়ারস্ট্রাইকে যে টার্গেটগুলি নষ্ট করা হয়েছে, তার মধ্যে মাসুদ আজহরের অতিথিশালা, যেখানে তার ভাই আব্দুল রৌফ আজহর থাকত, একটি হোস্টেল যেখানে জঙ্গিদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হত৷

আরও পড়ুন : ভোট মিটতেই ফের সিআইডি জেরার মুখে ভারতী

এই রিপোর্টে বলা হয়, স্ট্রাইকের কয়েক ঘন্টা পরে পাকিস্তানের বিদেশ মন্ত্রী এয়ারস্ট্রাইকের তথ্য খারিজ করে দেয়৷ এই সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, ভারতীয় বিমানগুলি ১৬০ সেকেন্ডে পজিশন নেয় এবং এবং এয়ারস্ট্রাইক করে ফিরে আসে৷

১৪ ফেব্রুয়ারি কাশ্মীরের পুলওয়ামারে জইশের আত্মঘাতী জঙ্গি হামলা করে৷ এই ঘটনায় পুলওয়ামায় সিআরপিএফের ৪০ জন জওয়ান শহিদ হন৷ তার পর গত ২৬ ফেব্রুয়ারি ভারতীয় বায়ুসেনা জইশের বালাকোটের ক্যাম্পে এয়ারস্ট্রাইক করে৷

আরও পড়ুন: ২৩ মে’র পর বিজেপি থেকে বিধায়করা যোগ দেবেন কংগ্রেসে

সাম্প্রতিক একটি রিপোর্ট বলছে ২৬ ফেব্রুয়ারির এয়ারস্ট্রাইকে ১৭০ জন জইশ জঙ্গি প্রাণ হারায়৷ ভারত সরকার বা ভারতীয় বায়ুসেনা এই দাবি করেনি৷ ইতালিয় সাংবাদিক ফ্রানচেসকো মারিনো তাঁর প্রতিবেদনে এই দাবি করেন৷

ফ্রানচেসকো মারিনো একমাত্র বিদেশি সাংবাদিক যিনি বালাকোট এয়ারস্ট্রাইকের পর ঘটনাস্থলে পৌঁছতে পেরেছিলেন৷ এর আগে একটি প্রতিবেদনে তিনি দাবি করেছিলেন, ভারতের এয়ারস্ট্রাইক বালাকোটে ১২ জন এমন ব্যক্তিকে নিকেশ করেছে যারা পাকিস্তানের ছায়াযুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ ছিল৷ জইশ এর গুরুত্বপূর্ণ মাথারা, প্রাক্তন আইএসআই এজেন্ট, প্রাক্তন পাক সেনারা নিহত হয়েছে৷ প্রত্যক্ষদর্শীরা মারিনোকে জানিয়েছেন, এয়ারস্ট্রাইকের এক ঘন্টা পর ৩৪-৩৫টি দেহকে ওই জায়গা থেকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়৷