জয়পুর : দুবাই থেকে আসছিল বিমানটি৷ ভিতরে ছিলেন ১৮৯ জন যাত্রী৷ আচমকাই সশব্দে টায়ার ফেটে যায় স্পাইসজেটের বিমানটির৷ সঙ্গে সঙ্গে জয়পুর আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে জরুরি অবতরণ করানো হয় এসজি-৫৮ বিমানের৷ বুধবার সকালের এই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়ায়৷ যাত্রীদের মধ্যে তৈরি হয় আতঙ্ক৷ বিমানটি দুবাই থেকে জয়পুর যাচ্ছিল৷

বিমানটি নামার সময় আচমকাই টায়ার ফেটে যায়৷ জোর ঝাঁকুনি লাগে যাত্রীদের৷ সকাল নটায় জয়পুর বিমান বন্দরেই নামে বিমানটি৷ সঙ্গে সঙ্গে ছুটে আসেন বিমান কর্মীরা৷ তবে কোনও যাত্রী এই ঘটনায় আহত হননি, সেভাবে কোনও ক্ষয়ক্ষতিও হয়নি৷ ১৮৯ জন যাত্রীই নিরাপদে রয়েছেন বলে খবর৷ বিমানটি জরুরি অবতরণ করার সঙ্গে সঙ্গে আপদকালীন দরজা দিয়ে যাত্রী ও বিমান কর্মীদের বাইরে বের করে আনা হয়৷

কেন এভাবে যাত্রাপথের মাঝেই টায়ার ফেটে গেল, তা তদন্ত করে দেখছে বিমান সংস্থা৷ উল্লেখ্য, বিমান অবতরণের সময় টায়ার ফেটে যাওয়া যথেষ্ট ঝুঁকিপূর্ণ৷ গোটা বিমানের চরম ক্ষতি হতে পারত৷ কারণ চাকার ওপরে বিমানের পুরো ভার পড়ে৷ ফলে বিমানটি উল্টে যাওয়ার আশংকা ছিল৷

উড়ানের সময় কেন চাকা পরীক্ষা করে নেওয়া হয়নি, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে৷ নিরাপত্তার অভাবে রীতিমত ক্ষুব্ধ যাত্রীরাও৷ বিমান বিশেষজ্ঞরা জানান, টায়ার ফেটে যাওয়ার মূল কারণ ব্রেকের কার্যকারীতা সঠিক না হওয়া৷ চাকা ঠিকমতো ঘুরতে না পারলে অতিরিক্ত চাপ পড়ে টায়ারে, ফলে ফেটে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে৷ সেক্ষেত্রে রানওয়েতে বিমানের চাকা পিছলে গিয়ে বড় দুর্ঘটনা ঘটতে পারত বলে আশংকা করা হচ্ছে৷

এর আগে, জুন মাসের শুরুতেই বড়সড় দুর্ঘটনা এড়ায় এয়ার ইণ্ডিয়ার বিমান৷ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সান ফ্রান্সিসকো পৌঁছে দেখা যায় বিমানের দরজায় চোখে পড়ার মত একটি ছিদ্র৷ এআই ১৮৩, বোয়িং ৭৭৭ এয়ারক্রাফটে এই ছিদ্র ধরা পড়ে৷ তবে ততক্ষণে দিল্লি থেকে লম্বা পথ পাড়ি দিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পৌঁছে গিয়েছে৷

সাধারণ পরীক্ষার সময়েই ছিদ্রটি ধরা পড়ে৷ চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে৷ এয়ার ইণ্ডিয়ার বিমানের পরিষেবা নিয়ে বারবারই যাত্রী অভিযোগ উঠে এসেছে৷ ২২৫ জন যাত্রীর জীবন নিয়ে এভাবে ছিনিমিনি খেলার অভিযোগে যথেষ্টই অস্বস্তিতে পড়ে এয়ার ইণ্ডিয়া কর্তৃপক্ষ৷ কেন ঠিক করে পরীক্ষা না করেই এতদূর পাড়ি দিল বিমানটি, তা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে৷

বিশ্বের মধ্যে এই দিল্লি-সান ফ্রান্সিসকো রুট সর্বাপেক্ষা বৃহৎ বলে ধরা হয়৷ এতদূরের পথে যে কোনও মুহুর্তে ঘটে যেত পারত বড়সড় দুর্ঘটনা৷ এত বড় গাফিলতি নিয়ে রীতিমত হইচই পড়ে যায়৷ বিমান কর্তৃপক্ষ নিজস্ব তদন্ত কমিটি গঠন করে গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করে৷