নয়াদিল্লিঃ বিশ্ব জুড়ে ক্রমেই বাড়ছে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা। ইতিমধ্যে ভারতেও যাতে এই ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা না বাড়ে সেই কারণে প্রধানমন্ত্রীর তরফ থেকে জারি করা হয়েছিল ২১ দিনের লক ডাউন। যা শেষ হবে আগামী ১৪ এপ্রিল। তার পরেও ক্রমে ভারতেও বেড়ে চলেছে এই ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা। আর এবারে এই ভাইরসের থাবা থেকে রেহাই পেলেন না স্পাইসজেটের এক পাইলটও।

জানা গিয়েছে ওই পাইলটের রিপোর্ট গতকাল শনিবার পাওয়া গিয়েছিল ডাক্তারের কাছ থেকে। সেখানেই জানা যায়, তার শরীরে বাসা বেধেছে ওই ঘাতক জীবানু। ওই বিমানসংস্থার মুখপাত্র জানিয়েছেন, আক্রান্ত ওই পাইলট কোনও আন্তর্জাতিক বিমান চালাননি মার্চ মাসে। শেষবার ২১ মার্চ তারিখে চেন্নাই থেকে দিল্লির একটি দেশীয় বিমানের ককপিটে বসেছিলেন। ফিরে এসেছে তিনি নিজে থেকে স্বেচ্ছায় কোয়ারেন্টাইনে গিয়েছিলেন বলেও ওই মুখপাত্র জানিয়েছেন। কিভাবে ওই পাইলটের শরীরে এই ভাইরাস এসেছে তা নিয়ে এখনও জানা যায়নি।

নিরাপত্তার কারণে ওই বিমানের সব কর্মী যারা ওই পাইলটের সংস্পর্শে এসেছিলেন তাদের ১৪ দিনের কোয়ারেণ্টাইনে রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যাতে তারা নিজেদের বাড়ি থেকে না বেরোন সেই বিষয়েও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া আক্রান্ত ওই পাইলটকে চিকিৎসা সংক্রান্ত সব ধরনের সুবিধা দেওয়া হচ্ছে বলেও জানানো হয়েছে বিমান সংস্থার তরফ থেকে। তারা এও জানিয়েছেন তাদের কাছে কর্মী এবং যাত্রীদের নিরাপত্তার ভার সবার আগে সেই কারণে সেই বিষয় কোন রকম ঝুকি নিতে রাজি নন স্পাইসজেট কতৃপক্ষ।

এও জানানো হয়েছে ওই বিমানটিকে জীবানুমুক্ত করা হচ্ছে। এছাড়া বাকি যাত্রীদের উপরেও কড়া নজর রাখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন। এছাড়া আর কেউ আক্রান্ত কিনা সেই বিষয় নিয়েও খোঁজ চলছে। ইতিমধ্যে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে পরিস্থিতি যাতে হাতের বাইরে না যায় সেদিকে কড়া নজর রাখা হচ্ছে। কিন্তু স্বয়ং পাইলটের এই ভাইরসে আক্রান্ত হওয়ার খবর সামনে আসাতে অবাক হয়েছেন অনেকেই।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও