নয়াদিল্লি: কিছুদিন স্বস্তি দেওয়া পর ফের বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। এর মধ্য়ে একাধিক রাজ্যের তরফে একাধিক সতর্কতা নেওয়া হয়েছে। এরই মধ্যে শোনা যাচ্ছে বাড়তে থাকা এই সংক্রমণের কথা মাথায় রেখে বাতিল করা হচ্ছে বিশেষ ট্রেন। ৩১ মার্চ থেকে এই ট্রেনগুলি বাতিলের সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু সোমবার রেল মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে এই খবর সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। মানুষকে বিভ্রান্ত করার জন্য এমন খবর রটিয়েছে কেউ।

রেলের তরফে একটি সরকারি বিবৃতি জারি করে বলা হয়েছে, সোশ্যাল মিডিয়ায় এমন কতগুলি খবর ছড়িয়েছে যেখানে বলা হয়েছে ৩১ মার্চ থেকে রেল কয়েকটি ট্রেন বাতিল করবে। এই খবর সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও বিভ্রান্তিকর। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভুল তথ্য ছড়িয়ে পড়ছে। তারা এমন কোনও ঘোষণাই করেনি। মন্ত্রকের তরফে এও জানানো হয়েছে, এই ভিডিও ক্লিপটি গত বছরের। এখন সেটি ফের ছড়ান হচ্ছ। এই ঘোষণার পাশাপাশি রেলের তরফে সম্পূর্ণ কোভিড প্রোটোকল মেনে যাত্রীদের যাতায়াতের অনুরোধ করা হয়েছে।

দেশজুড়ে ক্রমশই বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। এই বছরের গোড়ার দিকে দিনে দেশে দৈনিক সংক্রমণ ছিল ১০ হাজার। সেখান থেকে ক্রমশই বাড়ছে সংক্রমিতের সংখ্যা। সোমবার ২৬ হাজার ২৯১ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। গত ৮৫ দিনে এটি ছিল সর্বোচ্চ। করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১ লক্ষ ৫৮ হাজার ৭২৫। গত ২৪ ঘণ্টায় ১১৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। ভারতে বর্তমানে অ্যাক্টিভ কেসের সংখ্যা ২ লক্ষ ১৯ হাজা ২৬২। কমেছে সুস্থতার হারও। এখন ৯৬.৬৮ শতাংশ মানুষ সুস্থ হচ্ছেন। বিশেষত ৫টি রাজ্যে দ্রুত হারে ছড়াচ্ছে সংক্রমণ। সেখানেই গোটা দেশের ৭৮.৪১ শতাংশ করোনা সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে। এই রাজ্যগুলি হল মহারাষ্ট্র, পঞ্জাব, কর্ণাটক, গুজরাট ও তামিলনাড়ু।

সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে মহারাষ্ট্রে। এই রাজ্যেই শুধুমাত্র ৬৩ শতাংশ মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। সরকারি সূত্রে খবর, ৮টি রাজ্যে ছড়াচ্ছে সংক্রমণ। সেগুলি হল মহারাষ্ট্র, তামিলনাড়ু, পঞ্জাব, মধ্য প্রদেশ, দিল্লি, গুজরাট, কর্ণাটক ও হরিয়ানা। গত এক মাসে কেরলে সংক্রমণ অনেকটা কমেছে। গত বছর মার্চ মাসে প্রতিটি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে করোনা নিয়ে বৈঠক করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী। এ বছর জানুয়ারিতে তিনি রাজ্যগুলির সঙ্গে টিকা নিয়ে বৈঠক করেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.