লখনউ: মোদী সরকারের একাধিক কাজের বিরোধীতায় সরব হয়েছিলেন স্বামী৷ মেলেনি প্রার্থী হওয়ার টিকিট৷ এবার কী তবে বিজেপির রবিশঙ্কর প্রসাদের বিরুদ্ধে হাত প্রতীক নিয়ে লড়বেন শত্রুঘ্ন সিনহা৷ এই জল্পনা যখন তুঙ্গে তখনই সামনে এল শত্রুঘ্ন পত্নী পুনম সিনহার লোকসভা ভোটে লড়ার খবর৷ সূত্রের খবর, উত্তরপ্রদেশের লখনউ লোকসভা কেন্দ্র থেকে সমাজবাদী পার্টির হয়ে ভোটে লড়তে পারেন পুনম৷

আরও পড়ুন: কালীঘাটের ব্যানার্জ্জী পরিবারের সম্পত্তি বাড়ছে, সব নারদা-সারদার টাকা : সৌমিত্র খাঁ

২০১৪-এর লোকসভায় লখনউ কেন্দ্র থেকে ভোটে জয় পান বিজেপির রাজনাথ সিং৷ পুনমকে প্রার্থী করা হলে তিনিই হবে পদ্ম শিবিরের বর্ষিয়ান নেতা ও মন্ত্রীর প্রতিপক্ষ৷ রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে পুনমকে প্রার্থী করে একদিকে শত্রুঘ্নের টিকিট না পাওয়ার বদলা, অন্যদিকে বিজেপির ভোট ব্যাংকে থাবা বসাতে মরিয়া অখিলেশ সিং৷

পুনম সিনহার প্রার্থী হওয়া নিয়ে অবশ্য কিছু বলতে নারাজ সমাজবাদী পার্টি৷ কিন্তু চর্চা জারি রয়েছে পুরমাত্রায়৷ যাকে নিয়ে কথা সেই পুনম কী বলছেন? তিনি জানিয়েছেন, যথা সময় সবাই জানতে পারবেন কি হবে লখনউ কেন্দ্রে৷

আরও পড়ুন: প্রার্থীর নাম ঘোষণা বাকি, তবু বাঁকুড়ার পথে মহা মিছিল বিজেপির

এদিকে, গত শনিবারই সমাজবাদী সুপ্রিমো অখিলেশের সঙ্গে শত্রুঘ্ন সিনহার কথা হয়৷ মনে করা হচ্ছিল, বিজেপির বিরুদ্ধে সাইকেলের চাকা ঘোরাতে ‘বিহারী বাবুকে’ই প্রার্থী করে ফায়দা তুলতে চাইবেন অখিলেশ৷ কিন্তু তারপরই সামনে এল জনপ্রিয় অভিনেতার স্ত্রী’র ভোটে লড়ার বিষয়টি৷

আরও পড়ুন: সোনা পাচারের খবর বিজেপি-সিপিএম-কংগ্রেসের চক্রান্ত: অভিষেক

গেরুয়া শিবির অবশ্য মনে করছে অপেক্ষাকৃত দুর্বল প্রতিপক্ষ পুনম সিনহা৷ এতে অটলবিবারী বাজপেয়ীর আসনে রাজনাথ সিংয়ের ভোটে জেতা দ্বিতীয়বারের জন্য অনেকটাই সহজ হয়ে গেল৷ রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, গতবার মোদী ম্যাজিকে লখনউ কেন্দ্রে প্রায় ১৯ শতাংশের বেশি ভোট বাড়িয়েছিল বিজেপি৷ কংগ্রেস, এসপি, বিএসপির ভোট কমেছিল প্রচুর৷

এবার সেই ব্যবধান কমার সম্ভাবনা থারলেও বিজেপির লখনউ কেন্দ্রে জেতার বিষয়ে কোনও আশঙ্কা নেই৷ তাই শত্রুঘ্ন সিনহার জনপ্রিয়তা দিয়ে বাজি মাতের চেষ্টা করছে সমাজবাদী দল৷ কংগ্রেসের এতে মাথা ব্যাথা বাড়ল বলে মনে করা হচ্ছে৷

আরও পড়ুন: ভারত সীমান্তের খুব কাছে সেনা মোতায়েন করছে চিন, দাবি রাশিয়ার

স্ত্রী পুনম ভোটের প্রার্থী হওয়া নিয়ে জল্পনা চলছে৷ কিন্তু সপ্তদশ লোকসভায় শত্রুঘ্ন কী ভোটে লডা়বেন? লড়লে হাত ধরবেন, নাকি সাইকেলের সওয়ারি হবেন? এই প্রশ্নই এখন বড় হয়ে দেখা দিচ্ছে হিন্দি বলয়ের রাজনীতিতে৷