কলকাতা: বিজেপি নেতা জয় বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বিজেপি ছেড়ে তৃণমূল কংগ্রেস ফিরতে পারেন শোভন চট্টোপাধ্যায়? এত তাড়াতাড়ি সেরকম কোনও সিদ্ধান্ত নিতে চান না শোভন৷ সংবাদমাধ্যমে তিনি জানিয়েছেন৷ সোমবার শোভন বলেন, এই সব ব্যাপারে ভাবনা, চিন্তা এবং আলোচনার সুযোগ নেই৷ অহেতুক মন্তব্য করে বিড়ম্বনা তৈরি করারও কোনও জায়গাও নেই৷

শোভনকে প্রশ্ন করা হয়, যদি পার্টি (তৃণমূল কংগ্রেস) থেকে বলে তবে কী করবেন? শোভন জবাব দেন, কিছু কিছু ব্যক্তি দলের ভিতরে থেকে দলের প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে যা বলছেন, তাতে দলের বিড়ম্বনা তৈরি হচ্ছে৷ দলের নেতৃত্বকে জানাচ্ছি৷ দলের নেতৃত্ব ‘ইন-ক্যামেরা’ তাদের বক্তব্য আমাদের’কে বলছেন৷ সেই পরিপ্রেক্ষিতেই কিন্তু অচলাবস্থা৷ শোভন বলেছেন, ধৈর্য ধরুন, দল এবং আমাদের সিদ্ধান্ত জানতে পারবেন৷

তৃণমূলে ফিরে যাওয়ার প্রসঙ্গ শোভন সাবধানে এড়িয়ে গেলেও বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় কিছু ইঙ্গিতবাহী কথাবার্তা বলেছেন৷ যেমন তিনি মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় সম্পর্কে বলেছেন, কোনও একটি পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে বিরোধী দলনেতা পার্থ তাঁকে বলেছিলেন, আপনার মতো উজ্জ্বল ব্যক্তিত্বরা রাজনীতিতে এলে রাজনীতি সমৃদ্ধ হবে৷ আজ আমার সেকথা মনে পড়ছে …৷ বৈশাখী বলেছেন, আমি এত অশিষ্ট লোকজনদের দেখিনি৷ যা একটি দলের মধ্যে (বিজেপি) একসঙ্গে এত কম সময়ে দেখতে পাচ্ছি৷

বৈশাখীকে প্রশ্ন করা হয়, আপনার কী আপসোস হয়? বৈশাখীর বক্তব্য, ‘‘আমি তো একটি রাজনৈতিক জায়গায় ছিলাম৷ সেখানে কিন্তু আমি দীর্ঘ সময়ে কাজ করেছি৷ সেখানে বিতর্ক ছিল না তা নয়৷ সেখানে বিরোধী মতামতও ছিল৷ কিন্তু এই ধরণের ব্যক্তি কাঁদা ছোঁড়াছুড়ি যদি কেউ সামান্যতম করার চেষ্টা করেছেন, তক্ষুনি যিনি মাথায় থাকতেন, সহমর্মিতার সঙ্গে এগিয়ে এসে আমাকে রক্ষা করেছেন৷

অন্যায় করলে বকেছেন, কিন্তু ‘প্রাইভেটলি’ বকেছেন৷ কোনও ‘পাবলিক হিউমিলিয়েশনে’ নিয়ে যাননি৷’’ – এই বক্তব্যের মাধ্যমে বৈশাখী কাকে বোঝাতে চেয়েছেন বোঝা যায়নি৷ তবে বিভিন্ন মহলে আলোচনা, তিনি হয়তো তৃণমূল নেত্রীকেই বোঝাতে চেয়েছেন৷ বৈশাখী সোমবার এও বলেছেন, (বিজেপিতে যা হচ্ছে) …আমরা কৃতজ্ঞ যে বিরোধীরা এটার সুযোগ নেয়নি৷ এটার সুযোগে মুখ খুলেনি৷ সেটা তাদের শিষ্টাচার, আমি বলব৷ যারা অশিষ্ট ভাষায় কথা বলছেন তাদের শুভবুদ্ধির উদয় হোক৷

প্রসঙ্গত, জয় বন্দ্যোপাধ্যায় রবিবার বলেন, ‘‘দেবশ্রী রায় বড় অভিনেত্রী। গোটা বাংলার মানুষ তাঁকে ভালোবাসে, পছন্দ করেন। দলে নতুন এসেছে মমতার কাছের লোক কানন মানে শোভন চট্টোপাধ্যায়। আর তাঁর সঙ্গে দলে এসেছে আনকোরা এক মহিলা বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর রাজনীতিতে কোন অভিজ্ঞতা নেই। তিনি বলছেন, দেবশ্রীকে দলে নেওয়া যাবে না।’’ সোমবার, বৈশাখী-শোভন অবশ্য দেবশ্রী রায় নিয়ে নতুন কিছুই বলেননি৷ দেবশ্রী থাকলে তাঁরা বিজেপিতে থাকবেন না তাই বুঝিয়েছেন৷