কলকাতা: নবপত্রিকার স্নান দিয়ে শুরু হল মহাসপ্তমীর সকাল৷ বুধবার সকাল থেকেই গঙ্গাবক্ষে নামে মানুষের ঢল৷ নবপত্রিকা স্নান দেখতে গঙ্গা পাড়ে ভিড় জমান অসংখ্য মানুষ৷ প্রতিটা গঙ্গার ঘাটে জোরদার নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে৷

দুর্গাপুজোর অন্যতম আচার নবপত্রিকা স্নান। দুর্গার ডানদিকে তথা গণেশের পাশে রাখা হয় নবপত্রিকাকে।শাস্ত্র মতে নবপত্রিকা ন’জন দেবীর প্রতীক।নবপত্রিকার আক্ষরিক অর্থ ‘নয়টি পাতা’। এগুলি হল কলা, কচু, হলুদ, জয়ন্তী, বেল, দাড়িম্ব, অশোক, মান ও ধান। একটি কলাগাছের সঙ্গে অপর আটটি গাছের পাতা বা ডাল বেঁধে দেওয়া হয়। অপরাজিতা লতা দিয়ে বাঁধা হয়। তার পরে লাল পাড়ওয়ালা সাদা শাড়ি জড়িয়ে তাকে ঘোমটাপরা বধূর রূপ দেওয়া হয়। সিঁদুর পরানো হয়।

শাস্ত্রানুসারে নবপত্রিকা হল নয় পাতায় বাস করা নবদুর্গা৷ কলা রূপে ব্রহ্মাণী, কচু রূপে কালিকা, হলুদ রূপে উমা, জয়ন্তী রূপে কার্তিকী, বেল রূপে শিবানী, দাড়িম্ব রূপে রক্তদন্তিকা, অশোক রূপে শোকরহিতা, মান রূপে চামুণ্ডা এবং ধান রূপে থাকেন লক্ষ্মী৷

ধূপ প্রদীপের ধোঁয়া, ঢাকের বাদ্যি, কাঁসর ঘণ্টায় ভরে উঠেছে দুর্গা মণ্ডপ ৷ সপ্তমীতে উৎসবের মুডে তিলোত্তমা ৷ বৃষ্টি আর ভিড় এড়াতে সপ্তমী সকাল থেকেই ঠাকুর দেখার হিড়িকে মণ্ডপে মণ্ডপে ভিড় জমিয়েছেন উৎসব মুখর মানুষ৷ যত রাত বাড়বে, পাল্লা দিয়ে বাড়বে ভিড় ৷