নয়াদিল্লি : বর্ষা দেরীতে আসার পূর্বাভাস ছিল, তবে সময়মতোই দেশে প্রবেশ করল বর্ষা। বইতে শুরু করেছে দক্ষিণ পশ্চিম মৌসুমী বায়ু। সোমবার কেরলের উপকূলবর্তী অঞ্চলে বর্ষা ঢুকল বলে জানিয়েছে ইন্ডিয়ান মেটারোলজিক্যাল ডিপার্টমেন্ট বা আইএমডি। দেশের চার মাসের বর্ষাকালের সূচনা হল সোমবার, জানাচ্ছে এই সংস্থা। গত বৃহস্পতিবার আইএমডি বর্ষা আসার ইঙ্গিত দিয়েছিল।

এই চার মাসেই দেশ বার্ষিক বৃষ্টিপাতের ৭০ শতাংশ পায়। এবছরও তার ব্যতিক্রম হবে না জানানো হয়েছে। আইএমডির ডিরেক্টর মৃত্যুঞ্জয় মহাপাত্র জানিয়েছেন, বৃষ্টি হওয়ার উপযুক্ত সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। ফলে বৃষ্টি শুরু হওয়া সময়ের অপেক্ষা। এর আগে আইএমডি জানায়, চারদিন দেরিতে বর্ষা ঢুকবে কেরলে। দক্ষিণ পশ্চিম মৌসুমী বায়ু দেরিতে প্রবেশ করার ফলেই এবছর বর্ষা আসতে বিলম্ব হবে বলে খবর দেয় এই সংস্থা।

চলতি বছরে কেরলে বর্ষা ঢুকবে ৫ই জুন বলে খবর মিলেছিল। তাই আবহাওয়া দফতর জানায়, নির্ধারিত সময়ের চার দিন পরে ঢুকছে বর্ষা। আন্দামান নিকোবর দ্বীপপুঞ্জে বর্ষা ঢোকে ২০শে মে। এবার সেই দিন ধার্য করা হয়েছে ২২শে মে। এর ১০-১১ দিন পরে কেরলে পৌঁছয় দক্ষিণ পশ্চিম মৌসুমী বায়ু। তারপরেই শুরু হয় বর্ষাকাল। গোটা দেশের বেশিরভাগ চাষের জমির ফসল ফলে এই বর্ষাকালের বৃষ্টির ওপর নির্ভর করে। ধান, ভুট্টা, আখ, তুলো ও সোয়াবিন চাষের ৮০ শতাংশ নির্ভরশীল জুন থেকে সেপ্টেম্বরের বৃষ্টির হারের ওপর।

আবহাওয়াবিদরা বলছেন, ১৫ই জুলাইয়ের মধ্যে গোটা দেশে বর্ষাকাল পুরোদমে শুরু হয়ে যাবে। এদিকে, সোমবার হাওয়া অফিস জারি করল লাল সতর্কতা। পূর্ব উপকূলে আমফান শক্তিশালী হামলা চালানোর পর এবার পশ্চিম উপকূলে তাণ্ডব চালাতে ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় নিসর্গ। ১৮৯১ সালের পর এই প্রথম কোনও ঘূর্ণিঝড় আছড়ে পড়তে চলেছে মহারাষ্ট্রে। তাই সেই ঝড় নিয়ে শুরু হয়েছে চরম সতর্কতা।

হাওয়া অফিস আফ্রিকান উপকূলে একটি ‘সাইক্লোনিক সার্কুলেশন’ লক্ষ্য করেছে। যা আগামী সপ্তাহের প্রথম দিকেই ঝড়ে পরিণত হতে পারে। তবে শুধু আফ্রিকান উপকূল নয়, ভারতের আরও খানিকটা কাছে আরও একটি ঝড়ের সম্ভাবনা লক্ষ্য করেছে আইএমডি। যা সম্ভবত দিন কয়েক পরে তীব্র হওয়ার আশঙ্কা আছে। খুব সম্ভবত আগামী দুই থেকে তিন দিনের মধ্যে এটি গভীর নিম্নচাপের আকার নিতে পারে।

রবিবার ও সোমবার এটি আরও তীব্র হওয়ার সম্ভাবনা আছে। নিম্নচাপ সৃষ্টি হওয়ার পরে এটি আফ্রিকার ওমান ও ইয়েমেন উপকূলের দিকে অগ্রসর হতে পারে বলে জানিয়েছে আইএমডি। পাশাপাশি এটি আরও তীব্র হয়ে উঠতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

প্রশ্ন অনেক: দ্বিতীয় পর্ব