সিওল: করোনা পরিস্থিতির জেরে কার্যত আতঙ্কিত গোটা বিশ্ব। একাধিক দেশে এই মুহূর্তে করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন প্রচুর মানুষ। তার সঙ্গে থেমে নেই মৃত্যুর হারও। এই অবস্থাতে সাধারণের সুবিধার জন্য দক্ষিণ কোরিয়া প্রশাসনের তরফে নেওয়া হল এক নয়া পদক্ষেপ। তাদের তরফে লঞ্চ করা হল স্মার্ট বাস স্ট্যান্ড। যার ফলে নিয়ন্ত্রন রাখা যাবে এই করোনা সংক্রমণের উপরে।

জানা গিয়েছে এই নয়া বাস স্ট্যান্ডের ফলে একাধিক সুবিধা পাবে মানুষজন। বাসে ওঠার আগে দেখে নেওয়া যাবে যাত্রীদের তাপমাত্রা। ফলে কিছুটা হলেও নিয়ন্ত্রন রাখা যাবে করোনা মহামারীর উপরে। পাশপাশি ভাইরাস মারার জন্য রাখা হয়েছে ইউভি ল্যাম্প। আপাত ভাবে জানা গিয়েছে এই বিশেষ ধরনের আধুনিক স্ট্যান্ড বসানো হয়েছে সিওলে। ওই জায়গা দিয়ে প্রায় প্রতিদিন ৩০০-৪০০ যাত্রী যাতায়াত করেন। এছাড়াও ওই স্ট্যান্ডে রয়েছে একাধিক সুবিধা।

এছাড়াও রয়েছে স্মার্ট স্ক্রিন, থার্মাল ইমেজ ক্যামেরা সহ একাধিক সুবিধা। এমনকি ফ্রি ওয়াই ফাইয়ের সুবিধাও রয়েছে বাস স্ট্যান্ডে। জানা গিয়েছে, সকল যাত্রীদের তাপমাত্রা ৯৯.৫ ফারেনহাইট এর নীচে আছে কিনা, তা পরীক্ষার জন্যই এই ক্যামেরা স্মার্ট স্ট্যান্ডের দরজার সামনে লাগানো থাকবে।

জানা গিয়েছে, ওই স্ট্যান্ডে কোন যাত্রী প্রবেশ করলে এয়ার কন্ডিশন সিস্টেমের সঙ্গে থাকা ইউভি ল্যাম্প সব ধরনের জীবানু মেরে ফেলবে। পাশপাশি ওই স্ট্যান্ডের ভেতরে সকলকে নির্দিষ্ট দুরত্ব মেনে দাঁড়াতে হবে। পাশপাশি ফেস মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক। ইতিমধ্যে জানা গিয়েছে শহর জুড়ে দশটি এই ধরনের স্মার্ট স্ট্যান্ড তৈরি করা হয়েছে। আর অনেকেই এই স্মার্ট স্ট্যান্ডকে নিরাপদ বলেও জানিয়েছেন।

এখানে ঢোকার আগে সকলের তাপমাত্রা মাপা হচ্ছে। ইতিমধ্যে দক্ষ হাতে করোনা মহামারী সামলানোর জন্য আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে সম্মান পেয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া। আর এবারে এই নয়া পদক্ষেপ আনাতে ফের নজির স্থাপন করল কোরিয়া প্রসাসন। নিয়ন্ত্রেওনের পাশপাশি ভাইরাস মারার ক্ষেত্রে এক নয়া নজির দেখাল দক্ষিণ কোরিয়া।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও