ডারবান: কিংসমিডে চোখধাঁধানো ক্যাপ্টেন ইনিংস খেললেন প্রোটিয়া অধিনায়ক ফ্যাফ ডু’প্লেসি৷ তাঁর দুরন্ত সেঞ্চুরিতে বিরাটদের ২৭০ রানের টার্গেট দিল দক্ষিণ আফ্রিকা৷ শুরুতেই হাশিম আমলাকে তুলে নিয়ে প্রোটিয়াদের চাপে রেখেছিল কোহলি অ্যান্ড কোং৷ কিন্তু ১২০ রানের দুরন্ত ইনিংস খেলে বিরাটদের কঠিন পরীক্ষায় ঠেলে দেন প্রোটিয়া ক্যাপ্টেন৷

আরও পড়ুন: বাইশ গজে ভাইয়ে ভাইয়ে ‘বিশ্বযুদ্ধ’

একপ্রান্ত দিয়ে নিয়মিত ব্যবধানে উইকেট তুলে নিতে থাকলেও ডু’প্লেসির মনোসংযোগে চিড় ধরাতে পারেননি ভারতীয় বোলাররা৷ ডি’কক, মার্করাম, ডুমিনি, মরিসদের সঙ্গে ছোট ছোট পার্টনারশিপে দলকে টেনে নিয়ে যেতে থাকেন প্রোটিয়া অধিনায়ক৷

আমলাকে ১৬ রানের মাথায় এলবিডব্লিউ-এর ফাঁদে জড়ান বুমরাহ৷ কুইন্টন ৩৪ রান করে চাহালের বলে লেগ বিফোর হন৷ এবিডি-র জায়গায় দলে ঢোকা মার্করাম ৯ রান করে চাহালের বলেই পান্ডিয়ার হাতে ধরা পড়েন৷ ডুমিনি ব্যক্তিগত ১২ রানে কুলদীপের বলে বোল্ড হন৷ মিলার ৭ রান করে কুলদীপের দ্বিতীয় শিকার হন৷ সামনের দিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে মিলারের ক্যাচ ধরেন বিরাট৷ সেট হয়ে যাওয়া মরিসকে ৩৭ রানের মাথায় বোল্ড করেন চায়নাম্যান কুলদীপই৷

আরও পড়ুন: বিশ্বকাপে ‘থার্ড বয়’ পাকিস্তান

ইনিংসের শেষ ওভারে ব্যক্তিগত শতরান পূর্ণ করা ডু’প্লেসি ভুবনেশ্বরের বলে পান্ডিয়ার হাতে ধরা দেন৷ একই ওভারে রানআউট হন রাবাদা (১)৷ ফেলুকাওয়ো ২৭ রান করে অপরাজিত থাকেন৷ দক্ষিণ আফ্রিকা নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ২৬৯ রান তোলে৷

ভারতের হয়ে ৩৪ রানের বিনিময়ে তিনটি উইকেট নেন কুলদীপ৷ ৪৫ রানে দু’টি উইকেট নিয়েছেন চাহাল৷ একটি করে উইকেট ঢুকেছে ভুবনেশ্বর ও বুমরাহর ঝুলিতে৷

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।