জোহানেসবার্গ: ওয়ান্ডারার্সে চলতি সিরিজের চতুর্থ তথা শেষ টেস্টে দক্ষিণ আফ্রিকার সামনে জয়ের জন্য বড় রানের লক্ষ্যমাত্রা ঝুলিয়ে দিল ইংল্যান্ড৷ দ্বিতীয় ইনিংসে ব্রিটিশদের অল্প রানের বেঁধে রাখতে সক্ষম হলেও প্রথম ইনিংসের খামতি মিটিয়ে জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছতে লম্বা পথ পেরোতে হবে প্রোটিয়াদের৷

প্রথম ইনিংসে ইংল্যান্ডের ৪০০ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে দক্ষিণ আফ্রিকা অল-আউট হয়ে যায় ১৮৩ রানে৷ ২১৭ রানের বিশাল ব্যবধানে এগিয়ে থাকা সত্ত্বেও ডু’প্লেসিদের ফলো-অন করায়নি জো রুটরা৷ পরিবর্তে নিজেরাই দ্বিতীয় দফায় ব্যাট করতে নামে ইংল্যান্ড৷ তৃতীয় দিনের শেষে ইংল্যান্ড তাদের দ্বিতীয় ইনিংসে অল-আউট হয়ে যায় ২৪৮ রানে৷ অর্থাৎ জয়ের জন্য শেষ ইনিংসে দক্ষিণ আফ্রিকাকে তুলতে হবে ৪৬৬ রান৷ হাতে দু’দিনের পর্যাপ্ত সময় থাকলেও টেস্ট জিতে চার ম্যাচের সিরিজে সমতা ফেরানো সহজ হবে না প্রোটিয়াদের৷

আরও পড়ুন: বিগ ব্যাশ ফাইনালের আগে ব্যাট হাতে মাঠ মাতাবেন যুবরাজ

জোহানেসবার্গের ইতিহাসও এক্ষেত্রে দক্ষিণ আফ্রিকাকে আস্বস্ত করবে না৷ কেননা, এই মাঠে শেষ ইনিংসে সব থেকে বেশি ৩১০ রান তাড়া করে জয়ের রকের্ড রয়েছে৷ সুতরাং প্রোটিয়াদের চলতি টেস্ট জিততে হলে ইতিহাস গড়তে হবে৷

দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে প্রথম ইনিংসে কুইন্টন ডি’কক সর্বোচ্চ ৭৬ রান করে আউট হন৷ ৯ নম্বরে ব্যাট করতে নেমে প্রিটোরিয়াস করেন ৩৭ রান৷ বাকিদের মধ্যে দু’অঙ্কের রান বলতে এলগারের ২৬ ও মালানের ১৫৷ মার্ক উড ৫টি এবং একস ও স্টোকস ২টি করে উইকেট নেন৷

আরও পড়ুন: যুব বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে ভারতের সামনে কঠিন লড়াই

দ্বিতীয় ইনিংসে ইংল্যান্ডের সয়ে সর্বোচ্চ ৫৮ রান করেন ক্যাপ্টেন জো রুট৷ সিবলি ৪৪, স্যাম কারান ৩৫, স্টোকস ২৮ ও ক্রাউলি ২৪ রানের যোগদান রাখেন৷ হেনড্রিক্স প্রোটিয়াদের হয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ৫টি উইকেট নেন৷ ২টি করে উইকেট প্রিটোরিয়াস ও নর্ৎজের৷

প্রশ্ন অনেক: দ্বিতীয় পর্ব