সেঞ্চুরিয়ন: জয়ের লক্ষ্য ছিল ৩৭৬ রানের৷ হাতে পর্যাপ্ত সময় থাকায় ইংল্যান্ডের সামনে সুযোগ ছিল সেঞ্চুরিয়নে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে বক্সিং ডে টেস্টে জয় তুলে নেওয়ার৷ তৃতীয় দিনের শেষে ইংল্যান্ড তাদের দ্বিতীয় ইনিংসে ১ উইকেটের বিনিময়ে ১২১ রান তুলেছিল৷ হাফ-সেঞ্চুরি করে ক্রিজে অপরাজিত ছিলেন ররি বার্নস৷ তখনও পর্যন্ত ম্যাচে ব্রিটিশদের জয়ের সম্ভাবনা জিইয়ে ছিল৷ তবে চতুর্থ দিনের শুরু থেকে ধারাবাহিকভাবে উইকেট হারিয়ে ইংল্যান্ড কার্যত পরাজয় মেনে নেয়৷

আরও পড়ুন: ‘জয় শ্রীরাম’ বলে মিয়াঁদাদ আমেরদের তুলোধোনা করলেন কানেরিয়া

সুপারস্পোর্ট পার্কে দক্ষিণ আফ্রিকার ২৮৪ রানের জবাবে ইংল্যান্ড প্রথম ইনিংসে অল-আউট হয় ১৮১ রানে৷ ১০৩ রানে এগিয়ে থেকে দ্বিতীয় দফায় দক্ষিণ আফ্রিকা তোলে ২৭২ রান৷ শেষ ইনিংসে ইংল্যান্ড অল-আউট হয়ে যায় ২৬৮ রানে৷ দক্ষিণ আফ্রিকা বক্সিং ডে টেস্টে জয় তুলে নেয় ১০৭ রানের ব্যবধানে৷

আরও পড়ুন: মেলবোর্নেই সিরিজ জয় অস্ট্রেলিয়ার

ব্যক্তিগত ৭৭ রানের পর থেকে খেলতে নেমে চতুর্থ দিনের শুরুতেই বার্নস আউট হন ৮৫ রানের মাথায়৷ জো ডেনলি আগের দিন ব্যক্তিগত ১০ রানে অপরাজিত ছিলেন৷ তিনি সাজঘরে ফেরেন ৩১ রান করে৷ ক্যাপ্টেন জো রুট ব্যক্তিগত অর্ধশতরানের দোরগোড়া থেকে ফিরে যান৷ রুট ৪৮ রান করে ক্রিজ ছাড়েন৷ বাকিদের মধ্যে দু’অঙ্কের রান বলতে বেন স্টোকসের ১৪ ও বাটলারের ২২৷

আরও পড়ুন: ব়্যাপিড দাবায় বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হাম্পি

জনি বেয়ারস্টো ৯, স্যাম কারান ৯, জোফ্রা আর্চার ৪ ও স্টুয়ার্ট ব্রড ৬ রান করে আউট হন৷ কাগিসো রাবাদা ১০৩ রানের বিনিময়ে ৪টি উইকেট দখল করেন৷ ৫৬ রানে ৩ উইকেট নেন অ্যানরিচ নর্ৎজে৷ ৩৭ রানে ২টি উইকেট কেশব মহারাজের৷ ২৬ রানে ১ উইকেট নেন প্রিটোরিয়াস৷ প্রথম ইনিংসে ৯৫ ও দ্বিতীয় ইনিংসে ৩৪ রান করা কুইন্টন ডি’কক ম্যাচের সেরা ক্রিকেটার নির্বাচিত হন৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।