কলকাতা: এখন তিনি সম্পূর্ণ সুস্থ৷ সুতরাং ফের কাজে ফিরছেন বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়৷ ১২ মার্চ থেকে আমদবাদে শুরু হচ্ছে ভারত-ইংল্যান্ড টি-২০ সিরিজ৷ এই সিরিজের কোনও একটি ম্যাচ দেখতে মোদীর শহরে পা-রাখতে চলেছেন সৌরভ৷

চলতি বছরের দ্বিতীয় দিনেই অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক৷ ধমনীতে বক্লেজ ধরা পরায় সেন্ট বসানো হয়৷ তবে তিনি এখন সম্পূর্ণ সুস্থ বলে ইন্ডিয়া টু-কে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে জানান সৌরভ৷ শুধু তাই নয়, তিনি পুরোদমে কাজে ফিরেছেন বলেও জানান বোর্ড প্রেসিডেন্ট৷ ইন্ডিয়া টুডে-র কনসালটিং এডিটর বোরিয়া মজুমদারকে সাক্ষাৎকারে সৌরভ বলেন, ‘ফিট, একদম ঠিক আছি৷ এবার আমি কাজে ফিরছি৷ এখন আমার কোনও সমস্যা হচ্ছে না৷ যত সময় যাবে তত আরও ঠিক হবে৷ তবে আমি ভাগ্যবান যে, আমার অল্পের উপর দিয়ে গিয়েছে৷ এটা বড় হতে পারত৷’

আমদাবাদে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ভারত-ইংল্যান্ড পিঙ্ক বল টেস্ট দেখতে যাওয়ার কথা ছিল সৌরভের৷ কিন্তু শেষ মুহূর্তে তা বাতিল করেন বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট৷ মাত্র দু’ সপ্তাহ আগে হাসতাপাল থেকে ছাড়া পাওয়ায় কোনও ঝুঁকি নেননি মহারাজ৷ সৌরভের তত্ত্বাবধানে ভারতের মাটিতে প্রথম ডে-নাইট টেস্ট অনুষ্ঠিত হয়৷ ২০১৯ নভেম্বরে ইডেনে ভারত-বাংলাদেশ ম্যাচ দিয়ে দেশের মাটিতে প্রথম পিঙ্ক বল টেস্ট হয়েছিল৷ তারপর গত মাসে মোতেরায় ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে সিরিজের তৃতীয় টেস্টটি হয় ডে-নাইট৷ মাত্র দু’দিনেই ইংল্যান্ডকে উড়িয়ে দেয় কোহলি অ্যান্ড কোং৷

আমদাবাদে সিরিজের শেষ টেস্টেও ইংরেজদের উড়িয়ে দিয়ে চার টেস্টের সিরিজে ৩-১ জিতে নেয় ভারত৷ সেই সঙ্গে আইসিসি ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে পৌঁছে যায় টিম ইন্ডিয়া৷ ১৮ জুন সাউদাম্পটনে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে খেলবে ভারত৷ তার আগে অবশ্য ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে চলতি সিরিজের পাঁচ টি-২০ এবং তিন ম্যাচের ওয়ান ডে খেলবে কোহলি অ্যান্ড কোং৷

আমদাবাদের মোতেরা স্টেডিয়ামেই হবে পাঁচ ম্যাচের ভারত-ইংল্যান্ড টি-২০ সিরিজ৷ প্রথম ম্যাচ ১২ জানুয়ারি৷ এই সিরিজের কোনও একটি ম্যাচ দেখতে যাওয়ার কথা বোর্ড প্রেসিডেন্ট সৌরভের৷ তিনি জানান, ‘আমি টি-২০ সিরিজ দেখতে যাব৷ হয়তো দ্বিতীয় অথবা তৃতীয় টি-২০ সিরিজ দেখতে আমি আমদাবাদ উড়ে যাব৷’

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।