ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, জলপাইগুড়ি: প্রথম দফায় উত্তপ্ত হয়ে ওঠে কোচবিহার৷ এই বিষয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের জলপাইগুড়ি জেলা সভাপতি সৌরভ চক্রবর্তী সম্পূর্ণ দোষটাই বিজেপিকে দিয়েছেন৷

তিনি বলেন, ‘‘আলিপুদুয়ারে বিভিন্ন বুথে কেন্দ্রীয়বাহিনী নিরাপত্তা দেওয়ার নাম করে বিজেপিকে ভোট দিতে বলছে৷ সীমান্তবর্তী এলাকা ও আলিপুরদুয়ারে এই ধরণের ঘটনাগুলি ঘটছে৷ আমাদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করা হচ্ছে৷ বিভিন্ন বুথে ভোট ঠিক মতো হচ্ছে কিনা তা দেখতে গেলে সেন্ট্রাল ফোর্স বাধা দিচ্ছে৷ যাদের ভোটটাকে নিশ্চিত করার কথা ছিল তারা নিজেরাই রাজনৈতিক দলের হয়ে কাজ করছে৷ আমরা এর প্রতিবাদ জানিয়েছি৷ আমরা এই ঘটনা জেলাশাসক ও ইলেকশন কমিশনকে জানিয়েছি৷ এই ধরণের ঘটনা মেনে নেওয়া যায় না৷ এর প্রতিবাদ আলিপুরদুয়ারবাসী করবে৷ আজকের এই ঘটনার পর পরিষ্কার হয়ে যাচ্ছে কেন্দ্রীয়বাহিনী বিজেপির হয়ে কাজ করছে৷’’

এই প্রসঙ্গে বিজেপি প্রার্থী জন বারলা বলেন, ‘‘কেন্দ্রীয়বাহিনী নিজেদের কাজ করছে৷ তৃণমূলের উপর বিজেপির আনা অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যে৷’’ অন্যদিকে এই কেন্দ্রের বাম প্রার্থী গোবিন্দ রায়ের গাড়ি ভাঙচুর করা হয়৷ এতে অভিযুক্ত তৃণমূল কংগ্রেস৷ তবে টিএমসি এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে৷ দলের শীর্ষ নেতা তথা মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ সরাসরি বিএসএফের বিরুদ্ধে ভোটারদের প্রভাবিত করার অভিযোগ তুলে সরব হয়েছেন৷

এদিকে বিরোধীদের অভিযোগ, দিনহাটা মহকুমার একটি বুথে দাঁড়িয়ে থাকা ভোট দাতাদের তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা তাণ্ডব চালিয়েছে৷ ভোট কেন্দ্র থেকে তাড়িয়ে দিয়েছে তাঁদের এমনটাই বিজেপির অভিযোগ৷ বেশকিছু বুথে পুননির্বাচন করার দাবি তুলেছে তৃণমূল ও বিজেপি।

প্রথমদফায় কোচবিহারে ভোট গ্রহণে শাসক দলের বিরুদ্ধে ছাপ্পা ভোটের অভিযোগ তুলল কোচবিহারের বিজেপি নেতৃত্ব। ৭টায় ভোট শুরু হওয়ার পর থেকেই কোচবিহারের কয়েকটি জায়গায় বিক্ষিপ্ত অশান্তির খবর ছড়িয়েছে৷ কিছু জায়গায় ইভিএম খারাপের খবর এসেছে৷ আর এই ইভিএম খারাপের অভিযোগ তুলেই কোচবিহারের দুটি বুথে এবার পুননির্বাচন দাবি করলেন তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি রবীন্দ্রনাথ ঘোষ৷ কোচবিহারের দুটি বুথ ১০৫ ও ২২৯ নম্বর বুথে পুননির্বাচনের দাবি জানানো হয়েছে৷