কলকাতা: ক্রিকেটের নন্দনকানন ইডেন গার্ডেন্সের ইন্ডোর ও ক্রিকেটারদের ডর্মিটরিগুলোকে রাজ্য সরকারের হাতে তুলে দিতে প্রস্তুত ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন অফ বেঙ্গল। মারণ ভাইরাস নোভেল করোনা রুখতে একের পর এক যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত নিয়ে চলেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। এবার মুখ্যমন্ত্রীর দিকে সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে ‘প্রিন্স অফ ক্যালকাটা’র এই ঘোষণা মন কাড়ল ক্রিকেট অনুরাগীদের।

প্রাক্তন সিএবি সভাপতি তথা বর্তমান বিসিসিআই প্রেসিডেন্টের এক মানবিক ঘোষণার মাধ্যমে মঙ্গলবার জানান করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে প্রয়োজনে যে কোন মূল্যে সামিল হতে পারে বাংলার গর্ব ইডেন গার্ডেন্স। পিটিআই’কে সৌরভ বলেন, ‘সরকার যদি আমাদের বলে তাহলে আমরা নিশ্চিতভাবে ইডেন গার্ডেন্স হস্তান্তরে প্রস্তুত। এছাড়াও কোনওরকম পরিষেবা এই মুহূর্তে প্রয়োজন হলে তা আমরা প্রদানের জন্য তৈরি।’

তবে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ডের পদাঙ্ক অনুসরণ করে কঠিন সময় করোনার তহবিলে কী অর্থ সাহায্যের চিন্তা-ভাবনা করেছে বিসিসিআই? প্রশ্নের উত্তরে সৌরভ বলেন, সচিব জয় শাহের সঙ্গে এবিষয়ে নিশ্চিতভাবে কথা বলবেন তিনি।

উল্লেখ্য, করোনার প্রকোপ রুখতে রাজ্য সরকারের লকডাউন বর্ধিত করার ভাবনাকেও স্বাগত জানিয়েছেন সৌরভ। তাঁর কথায়, ‘এই সময় এর চেয়ে উপযুক্ত সিদ্ধান্ত আর হয় না। আমাদের কারোর হাতেই নিয়ন্ত্রণ নেই। সুতরাং সরকারি নির্দেশ ও স্বাস্থ্যমন্ত্রকের উপদেশ মানা ছাড়া কোন উপায় নেই আমাদের।’ যদিও ৩১ মার্চ অবধি রাজ্য সরকার লকডাউন ঘোষণা করার পর মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ২১ দিনের জন্য সমগ্র ভারতবর্ষে লকডাউনের ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী। মোদী বলেন, ‘এটাও এক ধরনের কার্ফু। কেউ বাড়ি থেকে বেরতে পারবেন না। এভাবেই করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচানো সম্ভব।’

তিনি বলেন, ‘২১ দিন নিয়ন্ত্রণে আনতে না পারলে ২১ বছর পিছিয়ে যেতে হবে আপনাদের।’ মঙ্গলবার মধ্যরাত থেকে জারি হচ্ছে এই লকডাউন। মোদী বলেন, ‘হাত জোড় করে প্রার্থনা করছি। আপনি সেইসব লোকের জন্য ভাবুন, যারা নিজেদের কর্তব্যের জন্য প্রাণের মায়া ত্যাগ করে লড়াই করছেন।’ প্রসঙ্গত প্রধানমন্ত্রীর জনতা কার্ফু’কেও সমর্থন জানিয়েছিলেন বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট।