নয়াদিল্লি: বাইশ গজে ব্যাটসম্যান সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় এবং রাহুল দ্রাবিড়ের পার্টনারশিপ একাধিক ক্ষেত্রে সহায়ক হয়ে উঠেছে দলের জয়ে। একইভাবে তিন ফর্ম্যাটে ভারতীয় ক্রিকেটের উন্নতির স্বার্থে প্রশাসক হিসেবে বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় এবং জাতীয় ক্রিকেট অ্যাকাডেমির প্রধান ্রাহুল দ্রাবিড়ের পার্টনারশিপ চাইছেন ভিভিএস লক্ষ্মণ।

উল্লেখ্য ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের ৩৯তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে গত বছর অক্টোবরে মসনদে বসেছেন সৌরভ। অন্যদিকে ২০১৯ জুলাইতে জাতীয় ক্রিকেট অ্যাকাডেমির ডিরেক্টর অফ ক্রিকেট অপারেশনস পদে আসীন হয়েছেন রাহুল দ্রাবিড়। সম্প্রতি ‘ক্রিকেট কানেক্টেড’ নামক একটি অনুষ্ঠানে এসে লক্ষ্মণ বলেছেন, ‘সৌরভ-দ্রাবিড়ের এই পার্টনারশিপটা একটা দারুণ বিষয়। একইসঙ্গে ভারতীয় ক্রিকেট যদি সব ফর্ম্যাটেই সমান সফল হতে চায় তাহলে এই পার্টনারশিপ ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। আমার কাছে সবাই গুরুত্বপূর্ণ। দলের অধিনায়, এনসিএ (জাতীয় ক্রিকেট অ্যাকাডেমি) প্রধান, বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট।

বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর ২০১৯ ডিসেম্বরে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় জাতীয় ক্রিকেট অ্যাকাডেমি পরিদর্শনে যান। দ্রাবিড়ের সঙ্গে ফলপ্রসূ আলোচনাও সারেন সৌরভ। ভারতীয় ক্রিকেটের উন্নতিতে রাহুল দ্রাবিড়কে আর বড় ভূমিকা গ্রহণ করতে বলেন সৌরভ। বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট কড়া ভাষায় ভারতীয় ক্রিকেটারদের জানিয়ে দেন চোটগ্রস্থ প্রত্যেককে জাতীয় ক্রিকেট অ্যাকাডেমিতে ফিটনেস পরীক্ষা দিয়ে তবেই উত্তীর্ণ হতে হবে। এনসিএ’র পরিবর্তে নিজের বিশেষজ্ঞ টিমের তত্ত্বাবধানে রিহ্যাব চালানোয় বিতর্কের মুখে পড়েন চোটগ্রস্থ বুমরাহ।

প্রাক্তন সতীর্থের সঙ্গে আলোচনা সেরে সৌরভ জানিয়েছিলেন, ‘ভারতীয় ক্রিকেটের উন্নতিতে আমি রাহুল দ্রাবিড়ের উপর ভীষণ আশাবাদী। ও একজন দুর্ধর্ষ ক্রিকেটার। ওর কাছে পারফেকশন এবং দায়বদ্ধতা দুটোই রয়েছে। জাতীয় ক্রিকেট অ্যাকাডেমির দায়িত্ব ওকে দেওয়া হয়েছে যাতে এনসিএ আর সংগঠিত হতে পারে। আমরা ভবিষ্যতে দ্রাবিড়ের ভূমিকা আর বর্ধিত করবে। এবিষয়ে আমার ওর সঙ্গে কথা হয়েছে।’

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ