কলকাতা: অবশেষে সিএবি-র প্রেসিডেন্ট পদে বসতে চলেছেন জগমোহন ডালমিয়ার পুত্র অভিষেক ডালমিয়া৷ সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট হওয়ার পরই সিএবি প্রেসিডেন্টের চেয়ারে অভিষেকের বসা প্রায় নিশ্চিত হয়ে যায়৷ ৫ ফেব্রুয়ারি সিএবি-র বিশেষ সাধারণ সভায় অভিষেকের নামে সিলমোহর পড়বে৷ আর সিএবি সচিব পদে অভিষেকের চেয়ারে বসতে চলেছেন সৌরভের দাদা তথা প্রাক্তন বাংলা ক্রিকেটার স্লেহাশিষ গঙ্গোপাধ্যায়৷

সৌরভ ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের মসনদে বসলেও সিএবি-তে তাঁর জন্য নতুন ঘরের ব্যবস্থা করা হল৷ বুধবারই নতুন ঘরে বোর্ড প্রেসিডেন্ট হিসেবে বসেন মহারাজ। এবার থেকে এই ঘরেই বসবেন বোর্ড প্রেসিডেন্ট। সিএবি-র তরফে সৌরভের হাতে পুষ্পস্তবক তুলে দেন সিএবি সচিব অভিষেক৷ ট্রাস্টি বোর্ডের ঘরই এবার থেকে বোর্ড প্রেসিডেন্ট এর ঘর হিসেবে চিহ্নত হল। করাণ বোর্ডের নতুন সংবিধান অনুযায়ী ভারতীয় ক্রিকেট প্রশাসনে ট্রাস্টি বোর্ডে আর কোনও অস্তিত্ব নেই৷

বুধবার সিএবি-তে নতুন চেয়ারে বসে কর্তাদের সঙ্গে খোলামেলা আড্ডা দেন মহারাজ। ধর্মঘট থাকলেও সারা দিন নিজের কাজেই ব্যস্ত ছিলেন সৌরভ। সকালের দিকে নিজের বাড়িতে বিজ্ঞাপনের শুটিংয়ে ব্যস্ত ছিলেন৷ তারপর অর্থাৎ সন্ধ্যায় সিএবি-তে এসে নতুন ঘরে বসে বোর্ডের কাজ শুরু করেন বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট।

কীভাবে সিএবি-র কাজকর্ম হবে তারও একটা রূপরেখা সৌরভ বাতলে দেন বলেও জানা গিয়েছে। সিএবি-র তরফে বুধবারই জানিয়ে দেওয়া হয় ৫ ফেব্রুয়ারি বিশেষ সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হবে৷ এই বৈঠকের পরই সিএবি-র নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেবেন অভিষেক ডালমিয়া। আর সচিব পদে দায়িত্ব নেবেন সৌরভের দাদা স্নেহাশীষ। অর্থাৎ কোনও নির্বাচন ছাড়াই নতুন প্রেসিডেন্ট ও সচিবের চেয়ার বসছেন যথাক্রমে অভিষেক ও স্নেহাশীষ৷

শুক্রবার সিএবি বিশেষ সাধারণ সভা নিয়ে বিজ্ঞপ্তি জারি করবেন সিএবি-তে নিযুক্ত নির্বাচনী অফিসার সুশান্ত রঞ্জন উপাধ্যায়। তারপরই সিএবি সচিব পদ থেকে পদত্যাগ করবেন অভিষেক।