কলকাতা: বিসিসিআই প্রেসিডেন্টের কুর্সিতে বসেই ভারত-বাংলাদেশ সিরিজ নিয়ে প্রাথমিকভাবে পরিকল্পনাটা করেছিলেন। এরপর স্বল্প সময়ের মধ্যেই সেটাকে দিনের আলো নয়, বরং বলা ভালো দিন-রাতের আলো দেখিয়ে ছাড়লেন সৌরভ চন্ডীদাস গঙ্গোপাধ্যায়। অর্থাৎ ‘প্রিন্স অফ ক্যালকাটা’র তত্ত্বাবধানেই দেশের মাটিতে প্রথম পিঙ্ক বল টেস্টের সাক্ষী হল ইডেন গার্ডেন্স। এই পিঙ্ক বল টেস্ট আয়োজন ঘিরে ঝক্কিও ছিল অনেক। পিঙ্ক বলের আচরণ ভারতের মত উপমহাদেশের মাটিতে কেমন হবে সেটা নিয়ে চিন্তার পাশাপাশি পিঙ্ক বলের দৃশ্যমানতা নিয়েও ছিল প্রশ্ন।

তবে বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় কিন্তু সাফ জানিয়ে দিলেন টেস্ট ক্রিকেটের ঐতিহ্য লাল বলের তুলনায় পিঙ্ক বলের দৃশ্যমানতা অনেকটাই ভালো। বিশেষ করে গোধূলির সময় পিঙ্ক বল নিয়ে ব্যাটসম্যানরা সমস্যায় পড়বেন না তো? দেশের প্রথম পিঙ্ক বল টেস্ট শুরুর প্রাক্কালে এমন প্রশ্নই ঘোরাফেরা করছিল বিশেষজ্ঞ মহলে। কিন্তু নিজের হাতে সমস্ত বিষয় তদারকির পর পিঙ্ক বলের দৃশ্যমানতা প্রসঙ্গে মহারাজ জানালেন, ‘লাল বলের চেয়ে পিঙ্ক বলের দৃশ্যমানতা অনেক বেশি সহজ।।’

পাশাপাশি দ্বিতীয়দিন ইডেনে ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলির শতরান প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘ও একজন রানমেশিন।’ প্রথম ভারতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে শনিবার ডে-নাইট টেস্টে সেঞ্চুরির পাশাপাশি ভারতীয় ক্যাপ্টেন হিসেবে ২০ নম্বর টেস্ট সেঞ্চুরি করেন কোহলি। ফলে ৭০টি আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরির মালিক হন বিরাট৷ অর্থাৎ সচিন তেন্ডুলকরের থেকে ৩০টি সেঞ্চুরি কম। একইসঙ্গে ক্যাপ্টেন হিসেবে সর্বাধিক ৪১টি আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরির মালিক হলেন কোহলি।

কোহলির প্রশংসার পাশাপাশি ইডেনে ঐতিহাসিক টেস্টের সূচনা লগ্নে উপস্থিত থাকার জন্য সৌরভ ধন্যবাদ জানিয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে। একইসঙ্গে বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রণে আগামী বছর এশিয়ান অল-স্টার বনাম বিশ্ব একাদশের মধ্যে অনুষ্ঠিত হতে চলা দু’টি টি-২০ ম্যাচে উপস্থিত থাকার প্রতিশ্রুতি জানিয়েছেন মহারাজ। উল্লেখ্য, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীতে ২০২০ ম্যাচদু’টি আয়োজিত হওয়ার কথা ঢাকায় বঙ্গবন্ধুর নামাঙ্কিত স্টেডিয়ামেই।