নয়াদিল্লি: উইলো হাতে হোক কিংবা স্টাম্পের পিছনে উইকেটকিপিং গ্লাভস হাতে, ধারাবাহিক খারাপ ফর্মের কারণে প্রায় প্রতিদিনই শিরোনামে তরুণ উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান ঋষভ পন্ত। চলতি বাংলাদেশের বিরুদ্ধে টি-২০ সিরিজও তার ব্যতিক্রম নয়। তবে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে পরিপক্ক হয়ে উঠবে পন্ত এবং ভালো পারফরম্যান্স উপহার দেবে, এমনটাই মনে করেন নয়া বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়।

আসন্ন টি-২০ বিশ্বকাপের কথা মাথায় রেখে নির্বাচকরা পন্তকে দলের অপরিহার্য করে তোলার জন্য পর্যাপ্ত সুযোগ দিলেও তা কাজে লাগাতে ব্যর্থ এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে টি-২০ সিরিজের প্রথম দু’ম্যাচেও পন্তের পারফরম্যান্সে বিশেষ কোনও উন্নতি চোখে পড়েনি, বরং উইকেটের পিছনে দাঁড়িয়ে একের পর এক ভুল করে চলেছেন বছর একুশের উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান। এমন সময় সমালোচকদের একের পর এক সমালোচনায় যখন বিদ্ধ পন্ত, তখন তাঁর সমর্থনে পাশে দাঁড়িয়ে পন্তকে ‘দুর্দান্ত ক্রিকেটার’ আখ্যা দিলেন নবনিযুক্ত বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট।

মহারাজের কথায়, ‘পন্ত একজন দারুণ ক্রিকেটার। আমার মনে হয় ওর থেকে সেরাটা পেতে ওকে আরও সময় দেওয়া উচিৎ।’ পাশাপাশি উইকেটের পিছনে কি ধোনির অভাব অনুভব করছে ভারতীয় দল? উত্তরে পিটিআই’কে প্রাক্তন অধিনায়ক আরও জানান, ‘সময় পেলে ধীরে ধীরে পন্ত দক্ষ হয়ে উঠবে।’ একইসঙ্গে রাজকোটে ভারতীয় দলের পারসরম্যান্সের ভূয়সী প্রশংসা করেন মহারাজ।

উল্লেখ্য, দিল্লিতে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে চলতি টি-২০ সিরিজের প্রথম ম্যাচে পন্তের ভুল ডিআরএস আবেদন নেওয়ার ফল ভুগতে হয়েছিল ভারতীয় দলকে। পাশাপাশি ব্যাট হাতে ২৬ বলে ২৭ করেছিলেন বটে, তবে তা টি-২০ ক্রিকেটের নিরিখে একেবারেই পর্যাপ্ত নয়। দ্বিতীয় ম্যাচেও বল ধরার ক্ষেত্রে উইকেটকিপিং গ্লাভস হাতে একাধিক ভুল করে বসেন পন্ত। মিস করেন লিটন দাসের স্টাম্পিংও। পরে অবশ্য একটি দুরন্ত রান-আউট ও স্টাম্পিংয়ে ক্ষতে কিছুটা প্রলেপ দেন তিনি। কিন্তু তাতে সমালোচনার হাত থেকে পন্ত রেহাই পাওয়ার নন।

এমন সময়ে নয়া বিসিসিআই প্রেসিডেন্টের সমর্থন আসন্ন ম্যাচগুলোতে পন্তকে কতটা উদ্বুদ্ধ করে, সেটাই দেখার। প্রেসিডেন্ট হিসেবে ঘরের মাঠ ইডেন গার্ডেন্সে আয়োজন করতে চলা দেশের মাটিতে প্রথম দিন-রাতের টেস্ট ঘিরে আপাতত ব্যস্ততা তুঙ্গে প্রেসিডেন্টের। ভারতের মাটিতে প্রথম পিঙ্ক বল টেস্টে ইডেনে বসবে চাঁদের হাট। সচিন তেন্ডুলকর থেকে অভিনব বিন্দ্রা, সানিয়া মির্জা থেকে পুসারলা ভেঙ্কট সিন্ধু। সংবর্ধনা জানানো হবে প্রত্যেককে। পাশাপাশি বাংলাদেশ অধিনায়ক শেখ হাসিনা বেল বাজিয়ে সূচনা করবেন ইডেন টেস্টের।

প্রসঙ্গত, টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে ২০০০ প্রথম বাংলাদেশের বিরুদ্ধেই দেশকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন সৌরভ। ঘটনাক্রমে সেটা আবার ছিল বাংলাদেশ জাতীয় দলের প্রথম আন্তর্জাতিক টেস্ট ম্যাচ। সেই ম্যাচে অংশগ্রহণ করা দু’দলের সকল ক্রিকেটাররাও আমন্ত্রিত ২২ নভেম্বর ইডেনে শুরু হতে চলা ঐতিহাসিক টেস্টে। আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে প্রত্যেকেই চূড়ান্ত, জানিয়েছেন নয়া বোর্ড প্রেসিডেন্ট।