স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: অলিপুরদুয়ারের বিধায়ক সৌরভ চক্রবর্তীকে মন্ত্রিসভায় জায়গা দিচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃণমূল সূত্রে এমনটাই খবর জানা গিয়েছে। লোকসভা নির্বাচনে আলিপুরদুয়ার আসনে জিততে পারেনি তৃণমূল। সেখানে জিতেছে বিজেপির জন বারলা। সূত্রের খবর, উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দফতরের কাজে খুশি নন মুখ্যমন্ত্রী। সৌরভকে এই দফতরের রাষ্ট্রমন্ত্রী করা হতে পারে। বর্তমানে এই দফতরের পূর্ণমন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ।

মমতার মন্ত্রিসভায় বর্তমানে আলিপুরদুয়ারের কোনও প্রতিনিধি নেই। অথচ রাজনৈতিক দিক থেকে এই জেলার গুরুত্ব খুব কম নয়। তাই সৌরভের গুরুত্ব বাড়ছে। সূত্রের খবর, জেলায় হারের পর আরও বেশি করে জনসংযোগের উপর জোর দেন সৌরভ। সেই খবর শুনে খুশি হয়েছেন মমতা।তার জেরেই তাঁকে মন্ত্রিসভায় নিয়ে আসতে তৎপর হয়েছেন তৃণমূল সুপ্রিমো। সৌরভকে মন্ত্রিসভায় নিয়ে আসা হলে, তাঁর জায়গায় কে হবেন জেলা সভাপতি?

তৃণমূল সূত্রের খবর, জলপাইগুড়ি জেলা পরিষদের সহ সভাধিপতি তথা তৃণমূলের কৃষক ফ্রন্টের জেলা সভাপতি দুলাল দেবনাথ, প্রাক্তন দুই জেলা সভাপতি কৃষ্ণকুমার কল্যাণী ও চন্দন ভৌমিকের মধ্যে কাউকে বসানো হতে পারে ওই পদে। জলপাইগুড়ি জেলা তৃণমূল যুব সভাপতি সৈকত চট্টোপাধ্যায়ের নামও রয়েছে বিবেচনায়। তবে অভিজ্ঞতার নিরিখে এগিয়ে রয়েছেন দুলালই। মমতার নেতৃত্বাধীন প্রথম মন্ত্রিসভায় জায়গা পেয়েছিলেন আলিপুরদুয়ারের জেমস কুজুর। তিনি কুমারগ্রামের বিধায়ক ছিলেন। আদিবাসী কল্যাণ দফতরের পূর্ণমন্ত্রী ছিলেন তিনি। পঞ্চায়েত নির্বাচনে দলের ফল খারাপ হয় এই এলাকায়। তার জেরে সরিয়ে দেওয়া হয় জেমসকে।

জেলা তৃণমূলেরও একটি অংশের দাবি, সৌরভকে মন্ত্রী করা হলে জেলায় দলের সংগঠন আরও মজবুত হবে।