তিমিরকান্তি পতি (বাঁকুড়া); রাজ্যে গণতন্ত্র নেই। ফেসবুকে সরকারের বিরুদ্ধে লিখলেও তাকে পুলিশ গ্রেফতার করছে। সোমবার বাঁকুড়ার ওন্দার রামসাগরে ‘গান্ধী সংকল্প যাত্রা’র সূচনা করে শাসকদল তৃণমূলকে কড়া ভাষায় আক্রমণ করলেন বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ। তিনি এদিন আরও বলেন, পশ্চিমবঙ্গে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে তারা সংকল্পবদ্ধ হয়েছেন। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম না করে আক্রমণ করেন সৌমিত্র।

তিনি বলেন, রাজ্যে অগতান্ত্রিক পরিবেশ ও হিংসায় মদতদাতা ‘পিসি-ভাইপোর বিরুদ্ধে বিজেপির এই সংকল্প যাত্রা’। ২০২০ সালে জেলার তিন পুরসভায় বাঁকুড়া, বিষ্ণুপুর ও সোনামুখীতে ভোট রয়েছে। এই প্রসঙ্গে সাংসদ সৌমিত্র খাঁ বলেন, এই তিন পুরসভায় বিজেপি বিরোধীদের কোন জায়গা নেই। এখন ‘পিসি-ভাইপো’ তাঁদের ‘চামচা’ পুলিশকে দিয়ে এই পুরসভাগুলিতে জিতছে চাইছে। বিজেপির বিষ্ণুপুর সাংগঠনিক জেলার উদ্যোগে ‘গান্ধী সংকল্প যাত্রা’ এদিন রামসাগরে শুরু হয়ে ওন্দা, কালীসেন, রতনপুরের বিভিন্ন এলাকা প্রদক্ষিণ করে। এই কর্মসূচীতে সাংসদ সৌমিত্র খাঁ ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন দলের বিষ্ণুপুর সাংগঠনিক জেলা সভাপতি স্বপন ঘোষ, বিজেপি নেতা অমর শাখা প্রমুখ।

বিজেপির ‘গান্ধী সংকল্প যাত্রা’কে ‘শব যাত্রা’ বলে কটাক্ষ করেছেন তৃণমূলের বিষ্ণূপুর সাংগঠনিক জেলা সভাপতি ও রাজ্যের মন্ত্রী শ্যামল সাঁতরা। তিনি বলেন, লোকসভায় মানুষ ভুল করেছেন। আগামী পুরসভা ভোট বা বিধানসভা ভোটে এই ভুল মানুষ করবেন। রাজ্যে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যতোদিন রয়েছেন কোন শক্তি নেই তৃণমূলকে হটানোর। দলের তরফে ধারাবাহিকভাবে জনসংযোগ যাত্রা ধারাবাহিকভাবে চলছে বলেও তিনি জানান।