সৌমেন শীল, কলকাতা: দল ছাড়ছেন তৃণমূল সাংসদ সৌমিত্র খাঁ। আজ বুধবারই বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন বিষ্ণুপুরের এই সাংসদ। যুব তৃণমূলের নেতা তথা ডায়মন্ড হারবাদ কেন্দ্রের সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে ক্ষোভ থেকেই তিনি দল বদল করছেন। প্রথম প্রতিক্রিয়াতে এমনটাই জানিয়েছেন সৌমিত্রবাবু।

মঙ্গলবার রাতের দিকে বিষ্ণুপুরের এসডিপিও সুকমল দাসের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিয়েছিলেন বিষ্ণুপুরের সাংসদ সৌমিত্র খাঁ। তাঁর অভিযোগ ছিল যে বিষ্ণুপুরের এসডিপিও সুকমল দাস সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে প্রার্থী হতে আগ্রহী। যেভাবেই হোক সেই লক্ষ্য পূরণে তিনি আসরে নেমেছেন। সেই কারণেই বিষ্ণুপুরের সাংসদকে টার্গেট করেছেন সুকমলবাবু। সাংসদের মতে, “আরামবাগ অথবা বিষ্ণুপুর থেকে তৃণমূলের প্রার্থী হতে চাইছে সুকমল দাস। সেই কারণে আমাকে সরিয়ে দিতে চাইছে।”

ওই দিনেই সুকমল দাস সাংসদের আপ্তসহায়ককে সুকমল দাস তুলে নিয়ে গিয়েছিল বলে অভিযোগ করেছিলেন সৌমিত্রবাবু। বুধবার দিল্লি থেকে বিষ্ণুপুরে ফিরে স্থানীয় পুলিশ সুপারের কাছে এসডিপিও সুকমল দাসের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করবেন বলে জানিয়েছিলেন তিনি। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে বিষ্ণুপুরের এসডিপিও-র অপসারণের এবং নিজের বক্তব্যের তদন্তের আবেদন করেছিলেন সাংসদ সৌমিত্র।

সেই ঘটনার ২৪ ঘণ্টা না কাটতেই বদলে গেল ছবিটা। বুধবার সকালেই দল ছাড়ার কথা ঘোষণা করলেন বিষ্ণুপুরের সাংসদ সৌমিত্র খাঁ। পাশপাশি তিনি স্পষ্ট করে দিয়েছেন যে ঘাস ফুল ত্যাগ করে তিনি পদ্ম ফুলের পতাকা হাতে তুলে নেবেন।

এই দল বদলের বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানতে চাওয়ায় সাংসদ সৌমিত্র খাঁ বলেছেন, “অভিষেক বন্দোপাধ্যায়ের প্রতি ধিক্কার জানিয়ে আমি আজ দল বদল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।” অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমণ করে তিনি আরও বলেন, “অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্বৈরাচারী মনোভাব থেকে মুক্তি পেতে আজ আমি বিজেপিতে যোগ দিচ্ছি।” নরেন্দ্র মোদীজি এবং অমিত শাহজির নেতৃত্বে ‘সবকা সাথ, সবকা বিকাশ’ করার জন্যেই জোড়া ফুল ছেড়ে একটা ফুলের দলে নাম লেখাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন বিষ্ণুপুরের সাংসদ।

তৃণমূল জামানায় রাজ্যে গণতন্ত্র নেই এবং আইনের শাসনও কিছু অবশিষ্ট নেই বলে অভিযোগ করেছেন সৌমিত্রবাবু। সেই কারণেই এই দল বদলের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন তিনি। তাহলে গত পাঁচ বছরে এই বিষয়ে তিনি সরব হননি কেন? এই বিষয়ে সৌমিত্র খাঁ বলেছেন, “আমি অনেক কিছু অনেকবার বলেছি। দলের মধ্যে আমার কথা শোনা হয়নি। রাজ্যে পুলিশিরাজ এবং দলে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্বৈরাতন্ত্র চলছে।” দল বদল করার পরে বিষ্ণুপুরের সাংসদ বলেছেন, “পশ্চিমবঙ্গে নতুন সূর্য উঠুক। নতুন ভাবে এগিয়ে চলুক।”