প্রতীতি ঘোষ, বারাকপুর: এবার সরাসরি বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিংকে চ্যালেঞ্জ দমদমেরতৃণমূল সাংসদ সৌগত রায়ের। বারাকপুরে পাট শিল্পের একটি সমাবেশে যোগ দিয়ে বারাকপুরের বিজেপি সাংসদকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সৌগত রায় বলেন, ‘‘ওর ভাটপাড়া আমরা কেড়ে নেব। ২০২৪ সালে লোকসভা কেন্দ্রটিও ওর থেকে কেড়ে নেব।’’

রাজ্যে বিধানসভা ভোট যত এগোচ্ছে রাজ্যে রাজনৈতিক উত্তেজনার পারদও ততই বাড়ছে। একদিকে উন্নয়নকে হাতিয়ার করে ক্ষমতায় টিকে থাকতে সচেষ্ট তৃণমূল। অন্যদিকে, তৃণমূলের বিরুদ্ধে একগুচ্ছ অভিযোগ তুলে রাজ্যে ক্ষমতা দখলে মরিয়া বিজেপি। পিছিয়ে নেই বাম-কংগ্রেসও। নির্বাচনী সমঝধোতা করে কর্মসূচি সাজাচ্ছে দু’পক্ষ। আসন্ন বিধানসভা ভোটে সমঝোতা করেই লড়াইয়ের ময়দানে বাম-কংগ্রেস।

এদিকে, ভোটের আগে রাজনৈতিক নেতাদের মেজাজ তুঙ্গে। দমদমে দলীয় কর্মসূচিতে যোগ দিয়ে বারাকপুরের বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিংকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিলেন বর্ষীয়ান এই রাজনীতিবিদ।

তিনি অর্জুনকে কটাক্ষ করে বলেন, ‘‘ভাটপাড়াতে ওর সঙ্গে নিজের লোকই এখন নেই। লোকসভা ভোটে মাত্র ১৫ হাজার ভোটে ও জিতেছিল। আমরা ওর সিট কেড়ে নেব। পারলে আমার চ্যালেঞ্জের মোকাবিলা করুক অর্জুন।’’

এরই পাশাপাশি আবারও শুবেন্দু অধিকারীকে নিয়ে মন্তব্য শোনা গেল সৌগত রায়ের গলায়। শুভেন্দু অধিকারী এখনও সরাসরি তৃণমূল ছাড়ার ঘোষণা না করলেও দলের সঙ্গে দূরত্ব অনেকটাই বেড়েছে। তাঁর দলে ফের সক্রিয় ভূমিকায় ফেরা কার্যত অনিশ্চিত বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহলের একটি বড় অংশ। যদিও এখনও তৃণমূলের সঙ্গ ছাড়ার পাকাপাকি কোনও ঘোষণা করেননি নন্দীগ্রামের বিধায়ক।

শুভেন্দু ইস্যুতে সৌগত রায় বলেন, ‘‘শুভেন্দু কেন, কেউ দল ছাড়লেই তৃণমূলের ফারাক হবে না। যতক্ষণ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দলের নেতৃত্বে আছেন, ততক্ষণ দলের কর্মীরা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গেই থাকবেন।’’

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.