মুম্বই: খিলাড়ির ভক্তদের জন্য সুখবর। জোড়া মাধ্যমে এক সাথে আসতে চলেছে বহু প্রতীক্ষিত অক্ষয় কুমার অভিনীত পুলিশ ড্রামা ‘সূর্যবংশী’।গত বছরই এ ছবি মুক্তি পাবার কথা ছিলো। কিন্তু করোনার জেরে পিছিয়ে যায় ছবি মুক্তি। তবে আর বিলম্ব নয়। এ বছরেই প্রেক্ষাগৃহ এবং ওটিটি দুই মাধ্যমেই খুব কম সময়ের ব্যবধানে প্রায় এক সঙ্গে মুক্তি পেতে পারে অক্ষয় কুমার অভিনীত পুলিশ ড্রামা ‘সূর্যবংশী’।

রিলায়েন্স এন্টারটেইনমেন্টের কর্তৃপক্ষরা পরিকল্পনা করেছেন,আগে ছবিটি প্রেক্ষাগৃহগুলিতে মুক্তি পাবে ।আর ঠিক তার ২৪ ঘণ্টা বাদে ওটিটিতে মুক্তি পাবে এই ছবি।

সিনেমা হল না ওটিটি এই নিয়ে আলোচনা এখন সর্বত্র। তবে,বিগ স্ক্রিনের ম্যাজিক তো বিগ স্ক্রিনেই আছে। কিন্তু লকডাউন পরবর্তী সময় থেকে যেভাবে ওটিটির হাতে চলে যাচ্ছে বিগ বাজেটের সিনেমাগুলি তাতে দুই দিক ব্যালেন্স করতেই রিলায়েন্স এন্টারটেইনমেন্টের এই সিদ্ধান্ত বলে মনে করছেন অনেকে। ছবি মুক্তি নিয়ে দুই মাধ্যমের যে দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হয়েছিল, তাতেই এ বার ইতি টানতে চলেছে রিলায়েন্স এন্টারটেইনমেন্ট।

তবে এখনই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।প্রযোজক এবং চিত্র প্রদর্শকদের মধ্যে এ বিষয়ে আলোচনা চলছে দুই মাধ্যমে ছবি মুক্তির বিষয় নিয়ে।তবে একটা জিনিষ নিশ্চিত দুই মাধ্যমের মধ্যে সময়ের পর্যাপ্ত ব্যবধান রেখেই আসবে এই ছবি।

লকডাউন চলাকালীন মালিক ও চিত্র প্রদর্শকরা আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছিলেন । প্রেক্ষাগৃহগুলি খোলার পর হল মালিকরা সলমন খানকে চিঠি লিখে অনুরোধ করেছিলেন ‘রাধে: ইওর মোস্ট ওয়ান্টেড ভাই’ যেন প্রেক্ষাগৃহেই মুক্তি পায়। ভাইজান সে কথা রেখেছেন।

এবার যদি সূর্যবংশী’-ও কোনো সমস্যা ছাড়া দুই মাধ্যমে মুক্তি পায়, তা হলে পরবর্তীকালে অন্যান্য ছবির জন্য একটা অন্য দিগন্ত খুলে যাবে।

২০১৮ তে এই ছবির কথা জানান দেন পরিচালক রোহিত শেট্টি। মাল্টি ষ্টার কাস্ট প্রথম থেকেই এই ছবির এক বড়ো চমক। অক্ষয় কুমার ,ক্যাটরিনা কইফ ,অজয় দেবগন,রণবীর সিং ,জ্যাকি শ্রফ আর এই লিস্ট শেষ হবার নয়। বোঝাই যাচ্ছে,যে মাধ্যমেই রিলিজ করুক এ ছবি তা দেখতে দর্শক আগ্রহী হবেই।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.