কলকাতা: পাঁচ বছর আগে ১৩ বছরের খরা কাটিয়ে মোহনবাগানের আই লিগ জয়ের অন্যতম কান্ডারি ছিলেন তিনি। অধরা মাধুরি আই লিগ (নাম পরিবর্তিত হয়ে) খেতাব জয়ের পর বাগান জনতার নয়নের মনি হয়ে ওঠা সনি নর্ডে দল বদলে এখন মালয়েশিয়ায়। কিন্তু প্রাক্তন ক্লাবের সব খবরাখবর তিনি রাখেন। তাই দ্বিতীয়বারের জন্য মোহনবাগান আই লিগ চ্যাম্পিয়ন হতেই সুদূর মালয়েশিয়া থেকে সনির অভিনন্দনবার্তা ভেসে এল প্রাক্তন ক্লাবের জন্য।

টুইটারে মোহনবাগানের একটি গ্রুপ ছবি পোস্ট করে মঙ্গলবার শনি লিখলেন, ‘ভারতের চ্যাম্পিয়ন। মোহনবাগান সমর্থক, সাপোর্ট স্টাফ ও ফুটবলারদের অনেক অভিনন্দন। জয় মোহনবাগান।’ প্রথমবার বাগান তাঁবুতে আই লিগ এনে দেওয়া হাইতিয়ান ম্যাজিশিয়ন বাগান জনতার এতটাই নয়নের মনি হয়ে উঠেছিলেন, যে ব্যারেটোর পর ক্লাবের সেরা বিদেশির তকমাও দেওয়া হয়েছিল সনিকে। বাগান জনতা ভালোবেসে ডাকতেন ‘হাইতিয়ান ম্যাজিশিয়ন’। বাগানের সঙ্গে দীর্ঘ ৫ বছরের সম্পর্ক ছিন্ন করে গত মরশুমে আজারবাইজানের একটি ক্লাবে যোগদান করেন সনি।

চোটের কারণে চোখের জলে মোহনবাগানকে বিদায় জানানো হাইতিয়ান ম্যাজিশিয়নের সঙ্গে গত মরশুমে আর চুক্তি পুনর্নবীকরন করেননি বাগান কর্তারা। তাতে কী? প্রাক্তন ক্লাবের প্রতি মোহনবাগানের আবেগ এতটুকু কমেনি সনির। মঙ্গলবারও প্রমাণ দিলেন সে কথা। চলতি মরশুমেও জুলেন কলিনাস চোটের কারণে মাঝপথে ছিটকে যাওয়ায় রব উঠেছিল বাগানে ফিরিতে পারেন সনি। কিন্তু না, পেশাদার হাইতিয়ান এখন মালয়েশিয়ার মেলাকা ইউনাইটেডের একজন গুরুত্বপূর্ণ সদস্য। তাই পুরনো ক্লাবের প্রস্তাব ফিরিয়ে দিলেও সনি এখনও আদ্যোপ্রান্ত একজন মোহনবাগানী।

উল্লেখ্য, আইজল এফসি’কে হারিয়ে চার ম্যাচ বাকি থাকতেই মঙ্গলবার দ্বিতীয়বারের জন্য আই লিগ চ্যাম্পিয়ন হয়েছে মোহনবাগান। সোমবাার ভূ-স্বর্গে রিয়াল কাশ্মীরকে হারিয়ে বাগানের পথ আরও সহজ করে দিয়েছিল ইস্টবেঙ্গল৷ এদিন কল্যাণীতে আইজলের বিরুদ্ধে প্রথমার্ধে গোল না-পেলেও ম্যাচের অন্তিমলগ্নে বেইতিয়ার পাস থেকে পাপা’র জোরাল শটে এগিয়ে যায় বাগান৷ স্ট্যানলি রোজারিওর দলকে হারিয়ে বাগানে পাল তুলল নৌকো৷ ১৬ ম্যাচে ৩৯ পয়েন্টে নিয়ে অন্যদের ধরা ছোঁয়ার বাইরে চলে যায় মোহনবাগান৷ লিগ চ্যাম্পিয়ন হয়ে ১৫ মার্চ ডার্বি খেলতে নামবে ভিকুনার ছেলেরা৷