কলকাতা: তৃণমূল কংগ্রেস শুক্রবারই বিধানসভা ভোটের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেছে। আর সেই তালিকায় নাম নেই বহুদিনের তৃণমূলের কর্মী ও সমর্থন সোনালি গুহর। এই নিয়ে শুক্রবারই প্রতিক্রিয়া জানিয়েছিলেন তিনি। এবার সেই ‘দুঃখে’ বহুদিনের দল থেকে বিরোধী পার্টি বিজেপিতে যেতে চান সোনালি। এই নিয়ে মুকুল রায়কে ফোনও করেছেন তিনি।

এ বছর বিধানসভা ভোটের জন্য তৃণমূল প্রার্থী তালিকা প্রকাশ হওয়ার পর দেখা যায় তাতে নাম নেই সোনালি গুহর। এরপর রীতিমতো ভেঙে পড়েন তিনি। সংবাদ মাধ্যমের কাছে প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে কেঁদে ফেলেন। ঠিক তার পরদিনই কার্যত অভিমানে দল ছাড়ার কথা বললেন সোনালি গুহ। জানা গিয়েছে, ইতিমধ্যেই মুকুল রায়ের সঙ্গে ফোনে কথা বলেছেন তিনি। সোনালি জানিয়েছেন তাঁকে বিজেপি দলে কোনও পদ দিতে হবে না বা তিনি প্রার্থী হতেও চান না। তিনি শুধু দলে থাকতে চান। এক সংবাদ মাধ্যমকে তিনি বলেছেন, কষ্ট পেয়েই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি।

প্রসঙ্গত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দলের প্রার্থী তালিকা ঘোষণার সময় বলেন, সোনালি গুহর যেহেতু হাই সুগার তাই শারীরিক অসুস্থতার কারণেই তাঁকে এ বছর প্রার্থী করা হচ্ছে না। এরপরই সংবাদ মাধ্যমের কাছে দুঃখ প্রকাশ করেন সোনালি। আর তার পরদিনই তাঁর বিজেপিতে যাওয়ার কথা সামনে এল। তাঁর মতো আরও একজন এদিন বিজেপিতে যাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। তিনি হলেন শিবপুরের তৃণমূল বিধায়ক জটু লাহিড়ী। জানা গিয়েছে, তিনিও বিজেপিতে যাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন।

সূত্রের খবর, তিনি বলেছেন তৃণমূল দলে একজনই কর্তা। তিনি ডানদিকে হেললে সবাই ডানদিকে হেলে। তিনি বাঁদিকে হেললে সবাই বাঁদিকে হেলে। ওই দলে আর কারোর কথার গুরুত্ব নেই। তিনি নিজে দলে অসম্মান নিয়ে থাকতে পারবেন না বলে মন্তব্য করেন জটু লাহিড়ী। এও শোনা গিয়েছে, ইতিমধ্যেই তাঁর সঙ্গে বিজেপি নেতৃত্বের কথা হয়েছে। রবিবারে বিজেপির ব্রিগেডে যাবেন বলেও জানিয়েছেন শিবপুরের তৃণমূল বিধায়ক।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।