গুগল থেকে প্রাপ্ত ছবি। (ফাইল)

মালদহ: বিবাহ বিচ্ছেদের বহু মামলা হয়৷ কিন্তু বউকে ফেরত চেয়ে মামলা৷ হ্যাঁ এমনই মামলা দায়ের করা হয়েছে মালদহ আদালতে৷ শুক্রবার ছিল সেই মামলার শুনানি৷

এদিন আদালতে হাজির হয়েছিলেন দুই পরিবারের সদস্যরা৷ শ্বশুর বাড়ির লোকজন জামাইকে হাতের কাছে পেয়েই শুরু করে মার৷ খবর পেয়ে আদালতে আসে ইংরেজবাজার থানার পুলিশ৷ এবং জখম জামাইকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়৷

জানা গিয়েছে, মালদহের ইংরেজ বাজারের অমৃতির নিয়ামতপুরের বাসিন্দা মাসুমা নাসরিন৷ তার সঙ্গে বিয়ে হয় মোথাবাড়ি থানার উত্তর লক্ষ্মীপুরের বাসিন্দা নইমুদ্দিন আহমেদের৷ নইমুদ্দিন পেশায় একজন প্রাথমিক শিক্ষক৷ বিয়ের কিছুদিন পরেই স্বামী-স্ত্রী আলাদা থাকতে শুরু করে৷

মেয়ের বাড়ির অভিযোগ, বিয়েতে নইমুদ্দিন আহমেদকে ২৫ লক্ষ টাকা নগদ দেওয়া হয়েছিল৷ তারপরও পনের দাবিতে মেয়ের উপর চলতে থাকে অত্যাচার৷ শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করা হত৷ এমনকি মেয়েকে সিগারেটের ছ্যাঁকাও দেওয়া হত৷ সেখানেই থেমে থাকেনি অত্যাচারী জামাই৷ শেষ পর্যন্ত বাড়ি ছাড়া করে মেয়েকে৷

অন্যদিকে, জামাইয়ের দাবি, বিয়ের পরে মেয়েকে নিজের বাড়িতে নিয়ে চলে আসেন বাপের বাড়ির লোকজন৷ এরপর বারবার বলা স্বত্বেও বাবর বাড়ি থেকে বউ ফেরত আসেনি৷ তার পরিবারকে বলেও কোনও লাভ হয়নি৷ অবশেষে আমাকে বউকে ফিরে পেতে মামলা করতে হয়েছিল৷

আদালতে মারপিঠের ঘটনায় দুই পরিবারই থানায় অভিযোগ করেছে৷ অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্তে নেমেছে ইংরেজ বাজার থানার পুলিশ৷