স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বিবেকানন্দের জন্মদিনে বেলুড় মঠে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের তীব্র সমালোচনা করলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র। তিনি বললেন, নাগরিক বিল নিয়ে অসত্য প্রচার করে স্বামীজিকে অসম্মান করেছেন মোদী।

শনিবার দিনভর সিএএ-এনআরসি নিয়ে বিক্ষোভ আগুনে ফুটছিল কলকাতা। বাংলায় এসে এ নিয়ে একটাও মন্তব্য করেননি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। কিন্তু রবিবার বেলুড় মঠে বিবেকানন্দের জন্মদিনের অনুষ্ঠানকেই বিরোধিতার জবাব দেওয়ার জন্য বেছে নিলেন তিনি। বেলুড় মঠ থেকে বিরোধীদের কটাক্ষ ছুড়লেন সিএএ নিয়ে। মোদী বলেন, “সিএএ নিয়ে যুব সম্প্রদায়কে ভুল বোঝানো হচ্ছে। বিভ্রান্তি তৈরি করা হয়েছে।” রাজনৈতিক স্বার্থেই ভুল বোঝানো হচ্ছে বলে প্রধানমন্ত্রী কটাক্ষ করেন। তাঁর মন্তব্য, ছোটো ছোটো বিদ্যার্থীরা বুঝে গিয়েছে, আর রাজনৈতিক কারবারীরা বোঝার চেষ্টা করছেন না। আসলে, তারা না বোঝার চেষ্টা করছে বলে বিরোধীদের তোপ দাগেন প্রধানমন্ত্রী।

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “এই আইন কারোর নাগরিকত্ব ছিনিয়ে নিচ্ছে না। নাগরিকত্ব প্রদান করছে। ৩ প্রতিবেশী দেশ থেকে আসা শরণার্থীদের দুর্দশার কথা ভেবেই এই আইন নিয়ে আসা হয়েছে। মোদী বলেন, “সরকার রাতারাতি নাগরিকত্ব আইন আনেনি। অসমের বিক্ষোভ নিয়ে তাঁর মন্তব্য, উত্তর-পূর্ব ভারতের রাজ্যের জনজাতির ভাষা, সংস্কৃতি, জীবনযাপনে কোনও আঘাত আনতে দেবে না এ সরকার।

আরও পড়ুন – ‘শরীর স্পর্শ করার চেষ্টা করত গৃহশিক্ষক’, ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতা শেয়ার করলেন অভিনেত্রী মধুরিমা

মোদীর সমালোচনা করে সোমেন মিত্র বলেন, “বেলুড় মঠ আমাদের দেশের শুধু এক আধ্যাতিক কেন্দ্র না, এটি আমাদের মননের শক্তি এবং শিক্ষার স্থল। আমার দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে দেশের অনেক নেতাকে বেলুড়মঠে আসতে দেখেছি। প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী অনেকবার বেলুড়মঠে এসেছেন কিন্তু নরেন্দ্র মোদির মত রাজনীতি করতে দেখিনি। বেলুড়মঠকে রাজনীতির মঞ্চ হিসাবে ব্যবহার করে প্রধানমন্ত্রী এই পুন্য ভূমিকে কলুষিত করলেন। বেলুড়মঠে দাড়িয়ে যেভাবে সংশোধিত নাগরিকত্ব বিলের অসত্য প্রচার করলেন সেটা প্রকারান্তে স্বামী বিবেকান্দের অপমান।গান্ধীজির কথাকেও বিকৃত করলেন।

তিনি আরও বলেন, “রামকৃষ্ণ মিশনের অনেক প্রাক্তনী মোদীর রাজনীতিতে বিরক্ত হয়েছেন। বাংলার আপামর মানুষও বেলুড় মঠকে কলুষিত করার জন্য নরেন্দ্র মোদিকে ক্ষমা করবেন না।”