নয়াদিল্লি: চলতি অর্থবর্ষের কয়েক মাস আগেই সেন্ট্রাল বোর্ড অব ডিরেক্ট ট্যাক্সেস (সিবিডিটি) বিজ্ঞপ্তি জারি করল আয়কর রিটার্নের ফর্মের । সাধারণত এপ্রিল মাসে এই ফর্মের বিজ্ঞপ্তি জারি হয়ে থাকে। এই বার রিটার্ন ফর্মে বেশ কিছু পরিবর্তন আনা হয়েছে ।

আয়কর দফতর ২০২০-২১ ‘অ্যাসেসমেন্ট’ বর্ষের জন্য দু’টি ফর্মের বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে, সেগুলি হল — আইটিআর-১ এবং আইটিআর ৪। যার ফলে এবার থেকে যৌথ মালিকানায় বাড়ি থাকলে তাদের আইটিআর-৪ জমা দিতে হবে। আবার একটি অর্থবর্ষে যাঁরা ব্যাংক অ্যাকাউন্টে এক কোটির বেশি টাকা জমা করেছেন তাদেরও আইটিআর-৪ জমা দিতে হবে । তা ছাড়া ইলেকট্রিক বিল বাবদ খরচ ১ লাখের বেশি হলে, তাঁদেরও ওই ফর্মেই রিটার্ন জমা দিতে বলা হয়েছে ৷

আগে করদাতাদের রিটার্ন ফাইলের সময় পাসপোর্ট সংক্রান্ত তথ্য দিতে হত না। কিন্তু এ বারে নয়া নিয়মে করদাতার পাসপোর্ট থাকলে তার নম্বর উল্লেখ করতে হবে রিটার্ন ফর্মের নির্দিষ্ট কলামে। তাছাড়া নিজের, পরিবারের বা অন্য কারও জন্য বিদেশ ভ্রমণে ২ লক্ষ টাকা বা তার বেশি খরচ করলেও সে কথাও জানাতে হবে রিটার্নে। আগে এই সব তথ্য জানাতে হত না।

কোনও ব্যক্তির একাধিক কারেন্ট অ্যাকাউন্ট থাকলে সে তথ্যও জানাতে হবে এবার আয়কর রিটার্নে। তবে সেই সব অ্যাকাউন্টে ১ কোটির বেশি টাকা জমা পড়লে তখনই সেই সব অ্যাকাউন্টের তথ্য দেওয়ার কথা বলা হয়েছে।

এ ছাড়া বছরের শুরুতে হাতে নগদ কত টাকা (ওপেনিং ক্যাশ ইন হ্যান্ড) এবং ব্যাংকে কত টাকা (ওপেনিং ব্যাঙ্ক ব্যালান্স) টাকা ছিল এবং বছরের শেষে কত রয়েছে, সে তথ্যও জানাতে হবে আয়কর দফতরকে। পাশাপাশি সারা বছরে নগদ টাকার লেনদেন এবং ব্যাংক থেকে কত টাকা তোলা বা জমা দেওয়া হয়েছে, সেই তথ্যও জমা দিতে বলা হয়েছে। তবে করদাতার কত টাকা দেনা বা পাওনা রয়েছে, সেই তথ্য আগে দিতে হত নয়া নিয়মে সেই সব তথ্য দিতে হবে না।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।