মোগাদিসু: জঙ্গি হামলায় এবার কেঁপে উঠল সোমালিয়া। মঙ্গলবার সোমালিয়ার রাজধানী শহর মোগাদিসুতে জঙ্গি হামলায় চাঞ্চল্য ছড়ায়। জঙ্গি হামলা হলেও হতাহতে এখনও কোনও খবর মেলেনি। মোগাদিসুতে রাষ্ট্রপতি ভবনের কাছেই একটি হোটেলে হামলা চালায় দুই জঙ্গি। তিন বছর আগে ২০১৬ সালেও এই হোটেলে হামলা চালিয়েছিল জঙ্গিরা। এই হামলার দায় স্বীকার করেছে ইসলামিক জঙ্গি সংগঠন ‘আল শাবাব।’

রাষ্ট্রপতি ভবনের খুব কাছে অবস্থিত শাইল হোটেল সরকারি কর্মীদের কাছে খুব জনপ্রিয়। বিভিন্ন সরকারি আধিকারিকরাও এই হোটেলে যান। ফলে খুব সহজেই এই হোটেলকে নিজেদের টার্গেট বানিয়ে নেয় জঙ্গিরা। রাজনৈতিক অস্থিরতায় থাকা সোমালিয়ার রাষ্ট্রসংঘ স্বীকৃত সরকারকে ফেলে দিতেই এই হামলা চালিয়েছে ওই জঙ্গিগোষ্ঠী। এমনটাই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

এর আগেও ২০১৬ সালে এই শহরেই শাইল হোটেলে একইভাবে হামলা চালিয়েছিল ‘আল শাবাব।’ এই হামলার সময়ে সেখানে উপস্থিত আহমেদ নামে এক পুলিশকর্মী রয়টার্সকে বলেন, ‘আমরা প্রথমে ওই দুই জনকে পুলিশ ভেবেছিলাম। কিন্তু হোটেলে ঢুকেই ওরা গুলি ছুঁড়তে শুরু করে। গ্রেনেডও ছোঁড়ে। ওরা সামনে আসতেই আমিও ওদের দিকে গুলি ছুঁড়ি।’

আরও পড়ুন – আরও উত্তপ্ত অসম-ত্রিপুরা, বন্ধ ইন্টারনেট, টহল দিচ্ছে সেনাবাহিনী

এই হামলা প্রসঙ্গে জঙ্গি গোষ্ঠী আল শাবাবের মুখপাত্র আবদি আজিজ বলেন, ‘আমাদের যোদ্ধারা হোটেলের ভিতরে ঢুকে হামলা চালিয়েছে। এই গোটা চত্বরটাই শত্রুদের বাসভবন।’ ইতিমধ্যেই গোটা চত্বর ঘিরে ফেলেছে পুলিশ। এই হামলার পিছনে কারা কারা রয়েছে তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ।
১৯৯১ সাল থেকেই সন্ত্রাস এবং গৃহযুদ্ধে দীর্ণ আফ্রিকার এই দেশ। এই সোমালিয়া থেকেই ২০১১ সালে নিষিদ্ধ ঘোষণা করে দেশ থেকে বিতারিত করে আল শাবাবকে। কিন্ত, এরপরেও একেরপ এক জঙ্গি-হামলার ঘটনা ঘটেছে।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও