soudaminir sangsar

কলকাতা: প্রায় ২ বছর বাঙালি দর্শককে আনন্দ দিয়ে এবার বিদায় নিতে চলেছে ‘সৌদামিনীর সংসার’। কিছুদিন পর থেকে এই ধারাবাহিক আর দেখা যাবে না জি বাংলার পর্দায়। এর শেষ পর্বের শুটিংও শেষ হয়ে গিয়েছে। ধারাবাহিকের শেষ শুটিংয়ের দিন সেটে রীতিমতো কান্নাকাটি পড়ে যায়। এতদিন একসঙ্গে কাজ করার পর যে এভাবে ছাড়াছাড়ি হবে, তা কিছুতেই মানতে পারছেন না ধারাবাহিকের সঙ্গে জড়িত সমস্ত কাস্ট অ্য়ান্ড ক্রু।

গত ৪ ফেব্রুয়ারি ছিল ‘সৌদামিনীর সংসার’ ধারাবাহিকের শেষ পর্বের শুটিং। তার চারদিন আগেও ধারাবাহিকের সঙ্গে যুক্ত কেউ জানত না এই ধারাবাহিক এবার শেষ হতে চলেছে। চারদিন আগেই সে কথা জানানো হয় তাদের। প্রিয় ধারাবাহিক বন্ধ হয়ে যাওয়ার কথা কেউ তো প্রথমে বিশ্বাসই করেনি। ভেবেছিল তাদের সঙ্গে প্র্যাকটিক্যাল জোক করা হচ্ছে। কিন্তু যখন সবাই জানতে পারে যে সত্যিই বন্ধ হতে চলেছে ধারাবাহিক, সবারই মন খারাপ হয়ে যায়। তার পর থেকে সেটে নাকি মনমরা হয়ে থাকতেন সকলে। অনেকেই নাকি সেটে কান্নাকাটি করতেন। অবশেষে ৪ ফেব্রুয়ারি শেষ পর্বের শুটিংও হয়ে যায়। ধারাবাহিকের সবাই সবার সঙ্গে সেদিন শেষ কাজ করে নেন। তবে শুটিং শেষ হলেই এখনই বন্ধ হচ্ছে না ধারাবাহিকের সম্প্রচার। এর শেষ পর্ব দেখানো হবে আগামী ১২ ফেব্রুয়ারি।

শোনা যায়, ক্রমশ রেটিং পড়ে যাচ্ছিল ‘সৌদামিনীর সংসার’-এর। প্রথমদিকে যেভাবে জয়যাত্রা চালিয়েছিল ধারাবাহিকটি, পরের দিকে তেমন সাফল্য পায়নি। রোম্যান্স ও হাস্যরসে মোড়া এই ধারাবাহিক শুরুর সময় অনেকেরই প্রিয় ছিল। দর্শকের মন জয় করে নিয়েছিল সৌদামিনী। এই চরিত্রে অভিনেত্রী সুস্মিলী আচার্যর অভিনয় মন কেড়েছিল দর্শকের। কিন্তু এখন নাকি তেমন রেটিং ছিল না ধারাবাহিকের। তাই এটি বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এই ধারাবাহিকের প্রযোজনার দায়িত্বে ছিলেন জয়দেব মণ্ডল। এটি পরিচালনা করতেন শিবাংশু ভট্টাচার্য।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।