হাওড়া: স্টেট ব্যাংকের তরফে কোনও এসএমএস পেয়েছেন? না পেলে খুব শীঘ্রই হয়তো পেতে পারেন। দেশের সবচেয়ে বড় ব্যাংক স্টেট ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট রয়েছে এমন বহু গ্রাহকই মোবাইলে একটি এমএমএস পাচ্ছেন ব্যাংকের তরফে। আর তাতেই বিভিন্ন জায়গায় বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। এমনই চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটেছে হাওড়ার বালিতে। সেখানে ঘোষপাড়া এলাকার একটি স্টেট ব্যাংকের শাখার গ্রাহকরা সবাই ব্যাংকের তরফে একটি এসএমএস পেয়েছেন।

অ্যাকাউন্ট হোল্ডারদের বড় অংশের অভিযোগ, ব্যাংকের তরফে তাঁদেরকে একটি এসএমএস পাঠানো হয়। যেখানে বলা হয়েছে যে, আজ সোমবার প্যান, আধার, ভোটার কার্ড ও ছবি নিয়ে অবশ্যই ব্যাংকে০ আসতে হবে। দেখা করার জন্য সকাল সাড়ে দশটা থেকে সাড়ে বারোটার মধ্যে সময় বেঁধে দেওয়া হয়। হঠাত এই এসএমএস পেয়ে অনেকেই আঁতকে ওঠেন।

কেউ পাবেন ভুল করে এসেছে আবার কেউ এসএমএম পেয়ে রীতিমত আতঙ্কে ভুগতে থাকেন। ভাবেন যে এই সমস্ত নথি জমা না দিলে হয়তো অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দিতে পারে ব্যাংক। আর সেই আতঙ্কে তড়িঘড়ি ব্যাংকে ছোটেন গ্রাহকরা। ১০ টার আগে থেকেই ব্যাংকের বাইরে লম্বা লাইন। সপ্তাহের প্রথম দিনে স্বভাবতই অনেক কাজ থাকে। কিন্তু দেখা যায় সেই কাজ ফেলে অনেকেই ব্যাংকের লাইনে।

কিন্তু সমস্যা হয় এই যে ব্যাংক খোলার পরেই গ্রাহকদের এদিনের জন্যে ফিরে যেতে বলে। হঠাত করেই এই কথায় গ্রাহকদের মধ্যে উত্তেজনা তৈরি হয়ে যায়। যদিও ব্যাংকের তরফে জানানো হয়, এই সব নথি জমা দেওয়ার জন্যে এত তাড়াতাড়ি কিছু করতে হবে না। এগুলি জমা দেওয়ার জন্যে সময় রয়েছে। আর তা রয়েছে চলতি বছর অর্থাৎ ২০২০ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত।

জানা গিয়েছে স্টেট ব্যাংকের শাখায় যাঁদের দশ বছরের পুরনো অ্যাকাউন্ট রয়েছে এই নিয়ম শুধুমাত্র তাঁদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। অ্যানালগ অ্যাকাউন্ট ডিজিটাল করতেই এই উদ্যোগ।

শুধু বালিতেই নয়, রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় এমনভাবে এসএমএসের মাধ্যমে গ্রাহকদের এই সমস্ত নথি জমা দেওয়ার জন্যে বলা হচ্ছে। আর তা জমা দেওয়ার জন্যে বিভিন্ন শাখায় সকাল থেকে লম্বা লাইন পড়ছে।