লন্ডন: ৪ টেস্টে ৭৭৪ রান। ১৯৭৬ ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ৪টি টেস্টে স্যার ভিভিয়ান রিচার্ডসের সংগৃহীত ৮২৯ রানের সর্বকালীন রেকর্ড হাতছাড়া হয়েছে অল্পের জন্য। কিন্তু একবিংশ শতকে একটি টেস্ট সিরিজে সর্বাধিক সংগৃহীত রান এখন স্টিভ স্মিথেরই দখলে। নির্বাসন থেকে ফিরে পাঁচদিনের ক্রিকেটে তাঁর মহাকাব্যিক কামব্যাকে ব্যাটসম্যানদের মসনদ পুনর্দখল করেছিলেন আগেই। স্মিথ ক্যারিশমায় পিছু হটেছিলেন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি।

আর অ্যাশেজ শেষে টেস্ট র‍্যাংকিংয়ে শীর্ষস্থান তো ধরে রাখলেনই, পাশাপাশি বিরাট কোহলিকে ৩৪ পয়েন্টে পিছনে ফেলে পয়লা নম্বর স্থানটা অনেকটাই পোক্ত করলেন প্রাক্তন অজি অধিনায়ক। উল্লেখ্য, সদ্য-সমাপ্ত অ্যাশেজ সিরিজে ৪ টেস্টে ৭৭৪ রান সংগ্রহ করে স্মিথ ছুঁয়ে ফেলেছেন ১৯৭১ ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে সুনীল গাভাসকরের ৪ টেস্টে সংগৃহীত সমসংখ্যক রানের রেকর্ড। অন্তিম টেস্টে দলকে জেতাতে ব্যর্থ হলেও ওভালে প্রথম ইনিংসে ৮০ রানে মূল্যবান ইনিংস এসেছিল স্মিথের ব্যাট থেকে। দ্বিতীয় ইনিংসে সিরিজে সর্বনম্নি ২৩ রান করেন তিনি। আইসিসি প্রকাশিত সাম্প্রতিক টেস্ট র‍্যাংকিংয়ে প্রাক্তন অজি অধিনায়কের সংগ্রহ ৯৩৭। সেখানে দ্বিতীয়স্থানে থাকা ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলির সংগ্রহ ৯০৩ পয়েন্ট।

৮৭৮ ও ৮২৫ পয়েন্ট নিয়ে যথাক্রমে তৃতীয় ও চতুর্থস্থানে রয়েছেন কিউয়ি অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন ও ভারতের মিডল-অর্ডার ব্যাটসম্যান চেতেশ্বর পূজারা। স্মিথের পাশাপাশি বোলারদের র‍্যাংকিংয়ে শীর্ষস্থান ধরে রেখেছেন অজি ফাস্ট বোলার প্যাট কামিন্স। সদ্য-সমাপ্ত অ্যাশেজে ২৯টি উইকেট সংগ্রহ করে সর্বাধিক উইকেট শিকারি কামিন্সও র‍্যাংকিংয়ে পয়েন্টের নিরিখে এগিয়ে রয়েছেন বেশ অনেকটাই। দ্বিতীয়স্থানে থাকা প্রোটিয়া ফাস্ট বোলার কাগিসো রাবাদার থেকে ৫৭ পয়েন্টে এগিয়ে রয়েছেন তিনি। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে বল হাতে দুরন্ত পারফরম্যান্সের সুবাদে র‍্যাংকিংয়ে তৃতীয়স্থানে ভারতের জসপ্রীত বুমরাহ।

অন্যদিকে অ্যাশেজে ব্যাট হাতে চূড়ান্ত ফ্লপ হওয়ার পর টেস্ট র‍্যাংকিংয়ে ৭ ধাপ নেমে গেলেন অজি ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার। র‍্যাংকিংয়ে আপাতত ২৪তম স্থানে রয়েছেন অ্যাশেজে ১০ ইনিংসে মাত্র ৯৫ রান করা ওয়ার্নার। শেষ টেস্টে দু’ইনিংসে যথাক্রমে ৭০ ০ ৪৭ রান করা ইংরেজ মিডল-অর্ডার ব্যাটসম্যান জোস বাটলার ঢুকে পড়েছেন র‍্যাংকিংয়ে প্রথম তিরিশে। পাশাপাশি নির্ণায়ক টেস্টের প্রথম ইনিংসে ৬ উইকেট সংগ্রহ করা ইংরেজ পেসার জোফ্রা আর্চার অভিষেক সিরিজ খেলেই বোলারদের র‍্যাংকিংয়ে ঢুকে পড়েছেন প্রথম চল্লিশে।