আমেঠি: আমেঠিতে কংগ্রেস দুর্গ গুঁড়িয়ে দেওয়ার জন্য একদিকে যখন উচ্ছ্বসিত প্রশংসা পাচ্ছেন স্মৃতি ইরানি। তার মধ্যেই এল দুঃসংবাদ। খুন করা হয়ছে তাঁর প্রচারসঙ্গীকে। আর সেই খবর শুনেই আমেঠি ছুটেন গেলেন এই নেত্রী।

শনিবার রাতে খুন করা হয় আমেঠির বারাউলিয়া গ্রামের প্রাক্তন প্রধান সুরেন্দ্র সিং কে। গুলি করা হত্যা করা হয় তাঁকে। নিহত সুরেন্দ্র স্মৃতি ইরানীর ঘনিষ্ঠ ছিলেন বলেই জানা যায়। স্মৃতি ইরানীর জয়ের পিছনে বড় ভূমিকা পালন করেছিলেন তিনি। আমেঠিতে স্মৃতির প্রচারে থাকতেন সুরেন্দ্র সিং।

খবর পেয়েই তাই স্মৃতি ইরানি দিল্লি থেকে আমেঠি পৌঁছান। মৃত সুরেন্দ্রর পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। সুরেন্দ্রর শবদেহ নিজের কাঁধে নিয়ে যান শেষকৃত্যের জন্য। সুরেন্দ্রর ছেলে এই ঘটনার পিছনে কংগ্রেস কর্মীদের হাত আছে বলে অভিযোগ করেছে।

সুরেন্দ্রকে শেষ বিদায় দেওয়ার বহু মানুষ ভিড় করেন। আরেকদিকে গ্রামে উত্তেজনা যাতে ছড়িয়ে না পড়ে, সেইজন্য পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

সুরেন্দ্র সিং-য়ের ছেলে অভয় বলেন, ‘আমার বাবা ২৪ ঘণ্টাই স্মৃতি ইরানীর প্রচারে লেগে থাকতেন। স্মৃতি ইরানীর জয়ের পর বিজয় মিছিলও বের করা হয়। আর এটাই কংগ্রেস কর্মীরা সহ্য করতে পারেনি। এই জন্যই আমার বাবাকে হত্যা করেছে কংগ্রেসের দুষ্কৃতীরা। কংগ্রেসের কয়েকজন কর্মীর উপর আমাদের সন্দেহ আছে।”

উত্তর পুলিশ পুলিশের ডিজিপি ওপি সিং জানান, ‘সাত জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আমরা আশা করছি ১২ ঘণ্টার মধ্যে এই মামলার নিষ্পত্তি হবে।’

আমেঠির বারাউলিয়া গ্রামের প্রধান ছিলেন সুরেন্দ্র৷ শনিবার রাতে তাঁর উপর অতর্কিতে হামলা করা হয়৷ গুলিতে ঝাঁঝরা হয়ে যায় ৫০ বছরের সুরেন্দ্র৷ গুরুতর আহত অবস্থায় তাঁকে লখনউয়ের হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়৷ চিকিৎসা চলাকালীন মারা যান তিনি।

ভোট প্রচারের সময় আমেঠির বারাউলিয়া গ্রামে গরিবদের জুতো বিলি করে করে প্রিয়াঙ্কার সঙ্গে তরজায় জড়ান স্মৃতি৷ প্রিয়াঙ্কার অভিযোগ, জুতো বিলি করে তিনি আমেঠি ও রাহুল গান্ধীকে অপমান করেছেন৷ কড়া জবাব দেন স্মৃতিও৷ স্থানীয়দের দাবি, বারাউলিয়া গ্রামে জুতো বিলির দায়িত্বে ছিলেন সুরেন্দ্র৷