স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: নারদ কাণ্ডে গ্রেফতার করা হল আইপিএস অফিসার এসএমএইচ মির্জা৷ নারদ কাণ্ডে এটাই প্রথম গ্রেফতার৷

ইতিমধ্যেই তাঁর শারীরিক পরীক্ষা করা হয়েছে৷ তাঁর বিরুদ্ধে একাধিক তথ্যপ্রমাণ রয়েছে বলে জানিয়েছে সিবিআই৷ নারদ কাণ্ডে তাঁর ফুটেজ খতিয়ে দেখা হয়৷ তার কণ্ঠস্বরের নমুনাও সংগ্রহ করেন সিবিআইয়ের আধিকারিকরা৷ তারপরেই তাঁকে গ্রেফতার করা হয়৷

তাকে হেফাজতে নিয়ে সিবিআই জানতে চাইবে কেন তিনি টাকা নিয়েছিলেন, কেন এই টাকার লেনদেন হয়৷ আর কারা রয়েছে এই আর্থিক লেনদেনের পিছনে৷ ধৃত এই আইপিএস অফিসারকে পেশ করা হবে ব্যাঙ্কশাল আদালতে৷

ইতিমধ্য়েই ৫দিনের সিবিআই হেফাজত চাওয়া হয়েছে৷ এখনও পর্যন্ত এসএমএইচ মির্জাকে যা যা প্রশ্ন করা হয়েছে, সিবিআইয়ের অভিযোগ তাদের বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করেছেন মির্জা৷ তাঁর দেওয়া তথ্যে যথেষ্ট অসঙ্গতি ছিল বলে জানিয়েছে সিবিআই৷ হেফাজতে নিয়ে তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদে আরও গতি আনতে পারে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা৷

আগে, ৩রা জুলাই ফের একবার সিবিআই আধিকারিকদের মুখোমুখি হতে হয়েছিল বহিষ্কৃত আইপিএস এসএমএইচ মির্জাকে৷ এই নিয়ে তৃতীয়বারের জন্য তাঁকে তলব করা হয়৷ নারদাকাণ্ডে ম্যাথু স্যামুয়েলের থেকে যে নতুন তথ্য পাওয়া গিয়েছে তাকে সামনে রেখেই জিজ্ঞাসাবাদ চলার কথা ছিল৷ সেই সঙ্গে ভিডিও ফুটেজ সামনে রেখে আরও কিছু তথ্য মির্জার থেকে জানতে চাওয়া হবে বলেও জানা যায়৷

গত ২৪ জুন নিজাম প্যালেসে প্রায় চার ঘন্টা সিবিআই জেরার মুখোমুখি হন ম্যাথু স্যামুয়েল৷ নারদ তদন্তে এর আগে বেশ কয়েকবার কেন্দ্রীয় গোয়েন্দারা ম্যাথুকে জিজ্ঞাসাবাদ চালিয়েছেন৷ জেরা করা হয় বহিষ্কৃত আইপিএস এসএমএইচ মির্জাকেও৷ তাঁর বয়ানের সঙ্গে ম্যাথুর আগের দেওয়া বয়ানে কিছুটা ফারাক রয়েছে বলে গোয়েন্দারা মনে করেন৷ যার ব্যাখ্যা পেতেই ফের জেরার জন্য ডাকা হয় ম্যাথুকে৷