লন্ডন: আগে মানুষের যোগাযোগের মাধ্যম ছিল চিঠি। এরপর ধীরে ধীরে যুগ বদলে আসে টেলিগ্রাফ, ফ্যাক্স, টেলিফোন। কিন্তু এইসবের যুগও শেষ হয়েছে বহুদিন আগে  টেলিফোনের কথা বলা হলে মানুষ এখন ভাবে আদ্যি যুগের কথা। বর্তমানে প্রধান যোগাযোগের মাধ্যম মোবাইল ফোন। এর অ্যাডভান্টেজ হল ব্যবহারে সুবিধা এবং সহজে পকেটে করে নিয়ে ঘোরা যায়।

কিন্তু এতেও কেমন অতৃপ্ত সকলে, তাঁর জন্যে বাজারে এলো স্মার্টফোন। মানুষ কিনা করতে পারছে এই স্মার্টফোন দিয়ে। মোবাইলের প্রথম যুগে কেউ এত কিছু ভাবতেও পারেনি ফোনে যে এত কিছু হতে পারে। ফোন নিয়ে গবেষণা করা প্রতিষ্ঠান  এরিক্সন একটি সমীক্ষায় জানিয়েছে, আগামী পাঁচ বছরের ভিতর বিলুপ্ত হতে পারে এই স্মার্টফোনও। তবে এর বদলে কি আসতে পারে বাজারে? এরকম প্রশ্ন মনে জাগতেই পারে। কোনও ভাবনা নেই, এই ভাবনার কাজ করবে কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন ডিভাইস যা আগামীর নতুন যোগাযোগের মাধ্যম হতে চলেছে।

স্মার্ট ফোনের চেয়ে আরও বেশী সুযোগ সুবিধা নিয়ে আসবে এই আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স অথবা কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন ডিভাইস। শুধুমাত্র যে মানুষের সঙ্গে নয় যে কোনও বস্তুর সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করবে স্মার্ট ফোনের এই বিকল্প ডিভাইসটি। আপনার ওয়ালেট কোথায় রেখেছেন খুঁজে পাচ্ছেন না, অথবা কোনও গুরুত্বপূর্ণ জিনিস যা আপনি মনে করতে পারছেন না তা সহজে খুঁজে পেতে সাহায্য করবে নতুন এই ডিভাইসটি। এটি কোনও মনগড়া গল্প নয় এটাই আগামীতে সত্যি হতে চলেছে।

ইতোমধ্যে রিসার্চ ল্যাবটি ইডেন সহ আরও ৩৯টি দেশের এক লাখ মানুষের ওপর পরীক্ষা চালিয়ে এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছে সংস্থাটি। ২০২১ এর ভিতর এই ডিভাইসটি সব মানুষের কাছে থাকবে বলে জানা গিয়েছে।