চেন্নাই: জুতো সংস্কৃতির ছোঁয়া লাগল দক্ষিণের রাজনীতিতে৷ সৌজন্যে অভিনেতা থেকে নেতা হওয়া কমল হাসান৷

নাথুরাম গডসেকে নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করে হিন্দুত্ববাদী নেতাদের একাংশের চক্ষুশূল হয়ে উঠেছেন কমল হাসান৷ বুধবার একদল হিন্দুত্ববাদী নেতা কমল হাসানকে লক্ষ করে জুতো ছুঁড়ে মারে৷ সেই সময় তামিলনাড়ুর মাদুরাইতে দলীয় প্রার্থীর হয়ে ভোট প্রচারে বেরিয়েছিলেন এই দক্ষিণী সুপারস্টার৷ সেই সময় জুতো উড়ে আসে তাঁর দিকে৷ তবে সেটি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়৷ জুতোটি কমল হাসানের পাশ দিয়ে বেরিয়ে যায়৷

এরপরই মক্কালা নিধি মাইয়াম দলের তরফে পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করা হয়৷ এফআইআরে বিজেপি কর্মী ও হনুমান সেনার ১১ জন কর্মীর নাম উল্লেখ করা হয়েছে৷ ঘটনার তদন্তে নেমেছে পুলিশ৷ এখনও অবধি কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি বলে খবর৷

রবিবার তামিলনাড়ুর আভারুকুরিচি বিধানসভা উপনির্বাচনের প্রচার করেন কমল হাসান৷ সেখানেই তিনি বিতর্কিত মন্তব্যটি করে বসেন৷ বলেন, ‘‘স্বাধীন ভারতের প্রথম সন্ত্রাসবাদী একজন হিন্দু৷ তার নাম হল নাথুরাম গডসে৷’’ পরে সভায় তিনি বলেন, ‘‘এখানে মুসলিম ভোট বেশি৷ তাই মনে হতেই পারে আমি ভোটের জন্য একথা বলছি৷ কিন্তু একেবারেই তা নয়৷ আমি এটা মহত্মা গান্ধীর মূর্তির সামনে বলছি।’’ দাবি করেন অভিনেতা থেকে নেতা হওয়া কমল হাসান৷

দক্ষিণী সুপারস্টারের মন্তব্যের বিরোধীতা করেছেন অভিনেতা বিবেক ওবেরয়ও৷ জানান, সিনেমা ও সন্ত্রাসের কোনও ধর্ম হয় না৷ ট্যুইটে বিবেক লেখেন, ‘‘আপনি অনেক উঁচু মানের শিল্পী৷ শিল্প ও কলার যেমন ধর্ম হয় না তেমন সন্ত্রাসেরও হয় না৷ আপনি বলেছেন গোডসে জঙ্গি ছিল৷ তাহলে কেন হিন্দু শব্দের প্রয়োগ করলেন? আপনি মুসলিম অধ্যুষিত এলাকায় ভোট চাইতে গিয়েছেন বলে এমনটা বলেননি তো?’’

ফাইল ছবি

নাথুরাম গডসে মন্তব্য নিয়ে চলতে থাকা বিতর্কের মাঝে বুধবারই প্রথম মুখ খোলেন অভিনেতা৷ নিশানা করেন তাদের যাঁরা তাঁর মন্তব্যের বিরোধীতা করেন৷ মাদুরাইতে ভোট প্রচারে গিয়ে কমল হাসান বলেন, ‘‘আরাভাকুরিচিতে যা বলেছি তাতে অনেকে আমার উপর রেগে গিয়েছেন৷ আমি যা বলেছি তা ঐতিহাসিক সত্য৷ কারোর সঙ্গে কারোর ঝামেলা বাধাতে ওই মন্তব্য করিনি৷’’