মুম্বই: শপথ নেওয়ার ৮০ ঘণ্টার মধ্যেই পদত্যাগ করলেন মহারাষ্ট্রের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফডণবীশ। আর এই পদত্যাগ ঘিরেই এবার আক্রমণ শানিয়েছে কংগ্রেস। বিজেপির সরকার মিথ্যার উপর দাঁড়িয়েছিল তাই তাসের ঘরের মত ভেঙে পড়ল। ঠিক এই ভাষাতেই বিজেপির এই ‘ক্ষণস্থায়ী’ সরকারকে বিঁধেছে কংগ্রেস।

মহারাষ্ট্রের রাজনীতিতে এই নয়া মোড় নিয়ে কংগ্রেস-এর পক্ষ থেকে জানানো হয়, এই ঘটনা শুধু ফডণবীশের ব্যর্থতাই নয়। দিল্লিতে বসে থাকা বিজেপি দলের নেতাদের মুখেও থাপ্পড়।’কংগ্রেসের মুখপাত্র রণদীপ সিং সুরযেওয়ালা এই ঘটনা প্রসঙ্গে বলেন, ‘এতদিন বিজেপি যে জনাদেশ অপহরণ করে রেখেছিল। আজকের ঘটনাই তার প্রমাণ।’দেবেন্দ্র ফডণবীশ এবং অজিত পাওয়ারকে ক্ষমা চাওয়ার উচিত বলে জানান। তিনি জানান, দেবেন্দ্র ফডণবীশ এবং অজিত পাওয়ার এই দুই জনকেই জনতার কাছে ক্ষমা চাওয়া উচিত।’

ঠিক তিনদিন আগেই গত শুক্রবার রাতে যখন কংগ্রেস-শিবসেনা-এনসিপির জোট সরকার প্রায় নিশ্চিত। ঠিক সেই সময়েই শনিবার সাত সকালে কার্যত নিঃশব্দে মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নেন দেবেন্দ্র ফডণবীশ। সঙ্গী হিসাবে উপমুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন এনসিপি নেতা অজিত পাওয়ার। এই সরকার গঠন ‘অবৈধ’ বলে সুপ্রিম কোর্টে মামলা দায়ের করে কংগ্রেস-এনসিপি-শিবসেনা। বুধবার আস্থাভোটের মাধ্যমে দেবেন্দ্র ফডণবীশকে সংখ্যাগরিষ্ঠতার প্রমাণ দিতে বলে সুপ্রিম কোর্ট। কিন্তু, তার আগেই মঙ্গলবারই পদত্যাগ করেন ফডণবীশ। কারণ অবশ্য তার আগে ১৬২ জন বিধায়ককে নিয়ে কংগ্রেস-এনসিপি-শিবসেনা এক হোটেলে হাজির হয়৷ এই পরিস্থিতি অনেকেই মনে করেছেন আপাতত যবনিকা পতন ঘটল মহারাষ্ট্রের মহা নাটকের ।

 

 

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও